১০ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২৪শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মিস ইউনিভার্সের মুকুট জিতল ভারতের মেয়ে হারনাজ সান্ধু।সুস্মিতা সেন, লারা দত্তের পর তৃতীয় ভারতীয় সুন্দরী হিসেবে  বিশ্বজুড়ে এমন খ্যাতি লাভ করলেন তিনি

এরমধ্য দিয়ে ২১ বছরের দীর্ঘ অপেক্ষার অবসান হলো ভারতের। ইজরায়েলে অনুষ্ঠিত গেল রবিবার(১২ডিসেম্বর) রাতে ইজরায়েলের এইলাটে বসেছিল ৭০তম মিস ইউনিভার্স-এর আসর। সেখানেই প্যারাগুয়ের নাদিয়া ফেরেইরা এবং দক্ষিণ আফ্রিকার লালেলা এমএসওয়ানেকে  পেছনে ফেলে সেরার মুকুট ছিনিয়ে নেন পঞ্জাবের ২১ বছরের সুন্দরী হারনাজ।

এদিন মিস ইউনির্ভাস প্রতিযোগিতার আয়োজকদের তরফে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করা হয়েছে সেই সোনালি মুহূর্ত যেখানে ২০২১ সালের মিস ইউনিভার্সের বিজয়িনীর নাম ঘোষণা করা হচ্ছে।

ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা হয়, ‘মিস ইউনিভার্স ২০২১-র তাজ উঠল মিস ইন্ডিয়ার মাথায়’। হারনাজের মাথায় এদিন মুকুট পরিয়ে দেন ২০২০ সালের মিস ইউনিভার্স মেক্সিকোর আন্দ্রেয়া মেজা।

মঞ্চে সোনালি স্লিভলেস গাউনে ঝলমল করলেন হারনাজ, হিরে খচিত মিস ইউনিভার্সের তাজ তার সৌন্দর্যকে যেনো আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

এই বিরল কীর্তিতে আবেগঘন হারনাজ। তার এ জয়ে গর্বিত গোটা ভারত। সুন্দরী প্রতিযোগিতায় ভারতকে এই সাফল্য এনে দেয়ার পর মাতৃভাষাতেই প্রথম প্রতিক্রিয়া জানান হারনাজ, তিনি বলেন- ‘চক দে ফট্টে ইন্ডিয়া…’।

১৯৯৪ সালে মিস ইউনিভার্স হয়েছিলেন মিস ইন্ডিয়া, সুস্মিতা সেন। ছয় বছর পর লারা দত্ত এই ঐতিহাসিক সাফল্যের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়েছিলেন। তারপর গত ২০ বছর ধরে ব্রহ্মাণ্ড সুন্দরী প্রতিযোগিতায় ভারতের ঝুলি খালি থেকেছে কিন্তু সেই অপেক্ষায় এদিন দাঁড়ি টানলেন হারনাজ সান্ধু।

পরে প্রাক্তন ব্রহ্মাণ্ড সুন্দরী লারাও টুইট করে শুভেচ্ছা জানান হারনাজকে। লারা লেখেন, ‘অভিনন্দন হারনাজ। আমাদের ক্লাবে তোমাকে স্বাগত। ২১ বছর ধরে এই সম্মানের জন্য আমরা অপেক্ষা করেছি। তুমি আমাদের গর্বিত করেছ। ১০০ কোটি স্বপ্নপূরণ হল।’