নিজস্ব প্রতিবেদক *

বজ্রপাতে সারাদেশে একদিনেই  ১৮ জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে চট্টগ্রামে পাঁচজন, সিরাজগঞ্জে পাঁচজন, ফেনীতে দুজন এবং মাদারীপুর, নোয়াখালী, মুন্সিগঞ্জ, পটুয়াখালী, মানিকগঞ্জ ও বরিশালে একজন করে মোট ছয়জন নিহত হয়েছেন।  রবিবার (৬জুন) এসব ঘটনা ঘটে।

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে, মিরসরাই ও বোয়ালখালীতে বজ্রপাতে তিনজন নিহত হয়েছেন।  ফটিকছড়িতে দুই জন।

সীতাকুণ্ডে বজ্রপাতের ঘটনায় একজন নিহত ও ১জন আহত হয়েছেন। রবিবার বিকাল ৪টার সময় উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের ৫নম্বর ওয়ার্ডের হাসনাবাদ গ্রামের বেড়িবাঁধ এলাকায় বজ্রপাতের এ ঘটনা ঘটে। নিহত এসকান্দর একই এলাকার মৃত হাবিবুল্লাহর ছেলে। আহত হাসান গোপ্তখালী গ্রামের আবু বক্করের ছেলে। নিহত ব্যক্তির পরিবার ও স্থানীয় লোকজন জানান, বৃষ্টিপাতের সঙ্গে প্রচণ্ড শব্দে বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। বৃষ্টির সময় এসকান্দর ও হাসান বেড়িবাঁধ থেকে গরু নিয়ে ফিরছিলেন। এসময় বজ্রপাতে এসকান্দর ঘটনাস্থলে নিহত হন এবং হাসান আহত হন।

স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। মুরাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহেদ হোসেন নিজামী নিহত হওয়ার ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন।

মিরসরাইয়ে বজ্রপাতে মো. সাজ্জাদ হোসেন তারেক (১৬) নামে এক স্কুল ছাত্র নিহত হয়েছে। এসময় তার বাবা মোশারফ হোসেন গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

রবিবার (৬ জুন) সকাল ১১টার দিকে উপজেলার সাহেরখালী ইউনিয়নের পূর্ব ডোমখালী এলাকায় এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে। নিহত সাজ্জাদ কমরআলী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র। পূর্ব ডোমখালী এলাকার জামাল ভূঁইয়া বাড়ির মোশারফ হোসেন ও তার ছেলে সাজ্জাদ বাড়ির অদূরে মাঠে কাজ করছিলেন। এসময় বজ্রপাতে সাজ্জাদ ঘটনাস্থলে মারা যায়। স্থানীয়রা বাবা মোশারফকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) নেয়া হয়। তার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক। সাহেরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হায়দার চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, খুব হৃদয়বিদারক ঘটনা। আজ সকালে মাঠে কাজ করার সময় সাজ্জাদ বজ্রপাতে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। তার বাবা আহত মোশারফের অবস্থাও ভালো নয়।

ফটিকছড়িতে জমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে ২ নারী নিহত হয়েছেন। এ সময় বজ্রপাতে গুরুতর আহত হয়েছেন আরো দুই নারী। রবিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে উপজেলার কাঞ্চননগর ইউপির মানিকপুর গ্রামের ডলু পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। বজ্রপাতে নিহত দুই নারী হলেন, যোগেন্দ্র শীলের স্ত্রী ভানুমতি শীল (৪০) ও বাণেশ্বর দাশের স্ত্রী লাকি রানি দাশ (৩৮)। আহত দুই নারীর নাম মালতী দাশ (৫০) ও শোভা রানি দে (৪৫) বলে জানা যায়।

আর পড়ুন:   দেশের অর্ধেক অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টি হচ্ছে

বিষয়টি নিশ্চিত করে ফটিকছড়ি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) এসএম জিয়াদ হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘কৃষিজমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আরও দুইজন আহত হয়েছেন। তারা একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পর সুস্থ হয়ে ওঠেছেন।’

এদিকে বোয়ালখালীতে বজ্রপাতে মো.জাহাঙ্গীর (৩৯) নামের এক দিনমজুর নিহত হয়েছেন। রবিবার (৬ জুন) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার জ্যৈষ্ঠপুরা পাহাড়ের গরজংগিয়া এলাকায় লেবু বাগানে কাজ করার সময় বজ্রাহত হন।

তাকে উদ্ধার করে দুপুর দু’টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।নিহত জাহাঙ্গীর শ্রীপুর-খরণদ্বীপ ইউনিয়নের জ্যৈষ্ঠপুরা গ্রামের মোস্তফা কামালের ছেলে।

বজ্রপাতে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে শ্রীপুর-খরণদ্বীপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোকারম বলেন, ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। পরিবারে জাহাঙ্গীরের বৃদ্ধ মা, স্ত্রী ও দুই মেয়ে রয়েছে। সেই উপার্জন করে সংসার চালাতো।

সিরাজগঞ্জ : রবিবার বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া ও বেলকুচি উপজেলায় বজ্রপাতে ৫জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় একটি মহিষও মারা গেছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসন জানিয়েছেন।

নিহতরা হলেন, শাহজাদপুর উপজেলার কায়েমপুর ইউনিয়নের চর আঙ্গারু গ্রামের আমানত হোসেনের ছেলে আব্দুল্লাহ (২৬), নরিনা ইউনিয়নের বাতিয়া গ্রামের আলহাজ বার্বুচি (৫০), উল্লাপাড়া উপজেলার বাগমারা গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৪৫), উধুনিয়া ইউনিয়নের আগদিঘল গ্রামের শাহেদ আলীর ছেলে স্কুলছাত্র ফরিদুল ইসলাম (১৫) এবং বেলকুচি উপজেলার চরশমেসপুর গ্রামের ইউসুফ আলীর স্ত্রী লাইলী থাতুন (৩৫)।

মাদারীপুর : জেলার শিবচরে বাদাম তুলতে গিয়ে বজ্রপাতে আয়েশা বেগম (৫০) নামের এক নারী নিহত হন। বিকেল ৪টায় উপজেলার চরজানাজাত ইউনিয়নের বালুরটেকে এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ফেনী : জেলার সোনাগাজীতে বজ্রপাতে দুই শিশু নিহত হয়েছে। বেলা ১১টায় উপজেলার বগাদানা ইউনিয়নের আলামপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, সাজেদা আক্তার (১২) ও আল আমীন (৬)। সাজেদা ওই গ্রামের আনু ফরায়েজি বাড়ির সোলেমান মিয়ার মেয়ে ও আল আমীন একই বাড়ির বাহার উদ্দিনের ছেলে।

নোয়াখালী : জেলার হাতিয়ায় ক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে মো. আবদুল মান্নান খোকন (৩৬) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন। দুপুর সাড়ে ৩টায় উপজেলার সোনাদিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব মাইসচরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত খোকন একই গ্রামের মৃত সৈয়দ আহমদ মুন্সীর ছেলে।

পটুয়াখালী : জেলার মির্জাগঞ্জে ক্ষেতে চাষ করার সময় বজ্রপাতে আবদুল জলিল নামের এক ব্যক্তি নিহত হন। দুপুরে উপজেলার মজিদবাড়িয়া ইউনিয়নের তারাবুনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত জলিল তারাবুনিয়া গ্রামের মৃত সেরজন আলী হাওলাদারের ছেলে।

আর পড়ুন:   প্রশাসনে সাড়েতিনলাখ নিয়োগ দেয়া হবে

মুন্সিগঞ্জ : জেলার সিরাজদিখানে বৃষ্টির মধ্যে ফুটবল খেলতে গিয়ে বজ্রপাতে অপূর্ব বর্মন (১৯) নামের এক কলেজছাত্র নিহত হয়েছেন। বিকেল ৪টায় উপজেলার শেখরননগর মাঠে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুজন। নিহত অপূর্ব উপজেলার শেখরনগর ইউনিয়নের জেলেপাড়া গ্রামের স্বপন বর্মনের ছেলে ও আলী আজগর অ্যান্ড আব্দুল্লাহ কলেজের এইচএসসির পরীক্ষার্থী।

মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জের ঘিওরে বজ্রপাতে মো.শাহীন হোসেন (১৮) নামে এক কলেজছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঘিওর উপজেলার বৈলট এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

বরিশাল : বিকেল বরিশালের উজিরপুর উপজেলার সাতলা ইউনিয়নের উত্তর সাতলা গ্রামে বজ্রপাতে নান্টু বালী (৩০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি ওই এলাকার ইউনুস বালীর ছেলে ।

 

 

 

 

 

সারা দেশে ব্রডব্যান্ডের এক রেট নির্ধারণ

সমকাল প্রতিবেদক

 

প্রকাশ: ৪ ঘণ্টা আগে

 

 

 

 

 

 

 

 

এখন থেকে সারা দেশে এক রেটে একই পরিমাণ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পাওয়া যাবে। ৫ এমবিপিএস ৫০০, ১০ এমবিপিএস ৮০০ এবং ২০ এমবিপিএস এক হাজার ২০০ টাকায় পাওয়া যাবে।

 

রোববার ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার ব্রডব্যান্ডের ট্যারিফ বা মূল্য নির্ধারণের এই কর্মসূচি ‘এক দেশ, এক রেট’ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

 

বিটিআরসি জানিয়েছে, এখন থেকে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগের ক্ষেত্রে এটিসহ তিনটি ক্যাটাগরিতে নির্ধারিত সর্বোচ্চ মূল্যের বেশি কেউ নিতে পারবে না।

 

বর্তমানে দেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের গ্রাহক প্রায় এক কোটি। এই সংখ্যক গ্রাহক দেশের মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ১৭ শতাংশ। কিন্তু এই গ্রাহকরা দেশের মোট ব্যান্ডউইথের ৫৮ শতাংশ ব্যবহার করে।

 

 

evaly

এ সময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব আফজাল হোসেন, বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার, ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র, কমিশনার (লিগ্যাল অ্যান্ড লাইসেন্সিং) আবু সৈয়দ দিলজার হোসেন, আইএসপিএবির সভাপতি আমিনুল হাকিম, সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক, আইআইজি ফোরামের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ জুনায়েদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।