৩৫ লাখ পরিবারকে আর্থিক সহায়তার উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ কার্যক্রমের আওতায় প্রতিটি পরিবার ২৫০০ করে টাকা পাবে। এছাড়া এসব অনুদানের টাকা তুলতে কোনো ধরনের চার্জ দেয়া লাগবে না এজেন্টকে।

                                    ৩৫ লাখ পরিবারকে আর্থিক সহায়তার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আজ রবিবার (২মে) সকাল সাড়ে দশটায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে শেখ হাসিনা এসব তথ্য জানান। প্রধানমন্ত্রী ভোলা জয়পুরহাট এবং চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের যুক্ত হন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানান, সবার জন্য করোনা ভাইরাসের টিকা নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার। তিনি করোনা ভাইরাসের টিকা নেয়ার পরও মাস্ক পরার নির্দেশনা দিয়ে বলেন, ‘নিজেদের সুরক্ষা রাখতে হবে এবং অন্যদের সুরক্ষা রাখতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা (আওয়ামী লীগ) কিন্তু জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন। আমরা সব সময় চিন্তা করি কীভাবে মানুষের পাশে দাঁড়াব। মানুষকে সহযোগিতা করব। আওয়ামী লীগ তার পদাঙ্ক অনুসরণ করেই কিন্তু কাজ করে যাচ্ছে। আমরা সব সময় দুর্গত মানুষের পাশে আছি।করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তার পাশাপাশি দলীয়ভাবেও আমরা মানুষের পাশে আছি।’

তিনি বলেন, ‘করোনায় কৃষকের ধান কাটার সমস্যা ছিল। আমি বলার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ মানুষের ধান কেটে দিয়েছে। এভাবে সব দুর্যোগ দুর্বিপাকে আওয়ামী লীগ মানুষের পাশে থাকে।’

করোনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই। আর তাই নিম্নআয়ের শ্রমজীবী এবং অপ্রাতিষ্ঠানিক কাজে নিয়োজিত বহু মানুষ কর্মহীন হয়েছেন। যাদের দিন পার করতে হচ্ছে অতিকষ্টে। আর তাই এসব কর্মহীন জনগোষ্ঠীকে সুরক্ষা দিতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বিগত বছরও ৫০ লাখ পরিবারকে ২৫০০ টাকা করে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নানা অনিয়মে কারণে ১৫ লাখ পরিবারকে দেয়া হয়নি। গতবার যারা নগদ সহায়তা পেয়েছেন তাদেরকে এবার টাকা দেয়া হবে। এতে সরকারের খরচ হবে ৮৮০ কোটি টাকা।