নিজস্ব প্রতিবেদক *

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতেগড়া সংগঠন বাংলাদেশ কৃষকলীগ। গত ১৯ এপ্রিল ছিল এ সংগঠনের ৪৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। প্রতিষ্ঠার মাসে কৃষকলীগ নেতাকর্মীরা কৃষকের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন, কেটে দিয়েছেন কৃষকের খেতের পাকাধান। কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে স্থানীয় কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চট্টগ্রামে প্রথম এ ধানকাটা কর্মসূচিতে শরিক হতে পেরে দারুণভাবে খুশি, উজ্জীবিত ও অনুপ্রাণিত। স্থানীয় লোকজন ও কৃষকেরাও ধানকাটার অভূতপূর্ব দৃশ্য দেখে বিশেষ আনন্দ উপভোগ করেছেন।

সীতাকুণ্ডের বারৈয়াঢালায় ধানকাটা কর্মসূচির উদ্বোধন করছেন কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ নেত্রী এডভোকেট উম্মে হাবীবা

বাংলাদেশ কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মোস্তফা কামাল চৌধুরীর নিজ ইউনিয়ন এ বারৈয়াঢালা। অসুস্থ কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ নেতা কামাল চৌধুরীর সার্বিক সহযোগিতায় এ ইউনিয়নের বহরপুর ওয়ার্ডের কৃষক বদিউল আলম,জসীম উদ্দিন ও পিন্টু দে (কালা)’র ৪একর জমির ধানকাটা কর্মসূচি শুরু হয় আজ  মঙ্গলবার সকালে। কর্মসূচি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম উত্তর জেল কৃষকলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ নেত্রী এডভোকেট উম্মে হাবীবা ও আরমান চৌধুরী। বক্তারা এসময় বলেন, কৃষকবান্ধব জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে করোনাকালে কৃষকদের পাশে দাঁড়াতে পেরে নিজেদের আমরা ধন্য মনে করছি। কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুকন্যা দেশের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বদা আন্তরিক। মহামারি করোনাকে সফলভাবে মোকাবেলা করে আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী বিশ্ববাসীর প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

ধানকাটা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন চট্টগ্রাম জেলা কৃষকলীগ নেতা ড. রেজাউল করিম চৌধুরী, দিদারুল আলম, ফজলুল ইসলাম ভুঁইয়া, খন্দকার শফিউল ইসলাম,বীরমুক্তিযোদ্ধা আবদুল হান্নান রানা, নুরুন নবী চৌধুরী,নুরুল আফছার চৌধুরী, সীতাকুণ্ড উপজেলা কৃষকলীগ নেতা  ইঞ্জিনিয়ার আজিজুল হক, আনোয়ার ইসলাম ভুঁইয়া, আওয়ামী লীগনেতা সাঈদ মিয়া,শামসুল আলম,বীরমুক্তিযোদ্ধা মাস্টার রফিকুল ইসলাম, এস এম আবদুল করিম ভাসানী,মোহাম্মদ জাফর,আবদুল মজিদ মাস্টারসহ আরো অনেকে।

উল্লেখ্য, ধানকাটা কর্মসূচি বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন কৃষকলীগ নেতা এস এম আবদুল করিম ভাসানী।