৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, করোনাকালে হোটেল রেস্তোরাগুলো বন্ধ ছিল। এতে তাদের ব্যবসায়িক অনেক ক্ষতি হয়েছে। এ ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রনোদনা দেয়ার উদ্যোগ  নিয়েছেন এবং তা আপনারা পেতে যাচ্ছেন।  এখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা। বিশেষজ্ঞদের মতে করোনার সংক্রমণের দ্বিতীয় তরঙ্গ আসছে। তাই আমি অনুরোধ করেবো হোটেল রেস্তোরাঁগুলো স্বাস্থ্য বিধি মেনে পরিচালনা করার। এ বিষয়ে আমি আশ্বস্ত করে বলতে চাই  সিটি কর্পোরেশন বা অন্যান্য কর্তৃপক্ষের দ্বারা আপনারা যেন কোনো হয়রানি বা ক্ষতির সম্মুখিন না হোন সে বিষয়ে আমার পূর্ণ সহযোগিতা থাকবে। আজ মঙ্গলবার সকালে আন্দরকিল্লা চসিক পুরাতন নগরভবনে গণ-সাক্ষাতকালে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম মহানগর হোটেল রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি নেতৃবৃন্দ আবেদন জানিয়েছেন যে, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন এলাকায় হোটেল ও রেস্তোরাঁর ট্রেড লাইসেন্স নতুন ও নবায়ন ইস্যুর ক্ষেত্রে সমিতির ছাড়পত্রের আবশ্যকতা নিশ্চিত করা,স্ট্রিটফুড বিক্রি বন্ধ করা হোক। এই প্রেক্ষিতে প্রশাসক বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে স্ট্রিটফুডের প্রচলন রয়েছে তেমনি করে আমাদের দেশেও বহুকাল থেকে এই ব্যবসা চলে আসছে। তবে স্ট্রিটফুড বিক্রেতাদের কিছু নিয়ম-নীতি অবলম্বন বাঞ্চনীয়। তিনি হোটেল রেস্তোরাঁ মালিকদের খাবারে কৃত্রিম রং ও টেস্টিংসল্ট ব্যবহার না করার আহ্বান জানান। তিনি বড় কোনো দোকানের সামনের পথ অবরুদ্ধ না করা, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন ও ময়লা আবর্জনা চসিক প্রদত্ত বস্তায় ভর্তি করা ও ব্যবসা পরিচালনায় নবায়নকৃত ট্রেড লাইসেন্স দোকানের সামনে প্রদর্শনের নির্দেশনাও দেন তিনি। এছাড়া আজকের গণশুনানিতে ৩০ জন্য সাক্ষাতপ্রার্থী তাদের সমস্যার কথা প্রশাসক বরাবরে তুলে ধরেন। তন্মোধ্যে ব্যক্তিগত,চাকুরী,বকেয়া পাওনা সহ বিভিন্ন বিষয় ছিল। প্রশাসক সবার সাথে একান্তে পৃথক সাক্ষাত করেন এবং যাচাই বাছাই পূর্বক যার সমস্যার সমাধানের আশ্বাস প্রদান করেন। এ সময় প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম উপস্থিত ছিলেন।

চসিক পরিচ্ছন্ন কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান

ওয়াটারএইড ও ডিএসকে কর্তৃক স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান অনুষ্ঠানে চসিক প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, সাম্প্রতিক সময়ে বৈশ্বিক মহামারি করোনা সারাবিশ্বকে লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে। ভেঙ্গে পড়েছে প্রত্যেক দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা। বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হতে যাচ্ছে। এই কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে  করোনা ঝুঁকি মোকাবিলায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, এজন্য সরকারের পাশাপাশি পাবলিক উদ্যোগে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে এবং মাস্কের সুষ্ঠু ব্যবহারের পাশাপাশি সঠিক উপায়ে হাত ধোঁয়া, পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকার কোনো বিকল্প নেই। ওয়াটারএইড ও ডিএসকে নগরীতে সঠিক তথ্য ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণের মধ্য দিয়ে সরকারের পাশাপাশি করোনা ঝুঁকি মোকাবিলায় কাজ করে যাচ্ছে। এ সকল স্বাস্থ্যবিধি আমাদের আচরণ পরিবর্তনের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে, নিজেকে এবং দেশকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। আজ  মঙ্গলবার বিকেলে টাইগারপাসস্থ চসিক নগরভবনের সম্মেলন কক্ষে ওয়াটার এইড ও ডিএসকে’র যৌথ উদ্যোগে চসিক পরিচ্ছন্ন কর্মীদের জন্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদানকালে চসিক প্রশাসক এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, করোনা মোকাবিলায় মাস্ক ব্যবহার এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প কিছু নেই। তাই এর ব্যহার নিশ্চিতে চসিক মাঠে নামবে। এই কার্যক্রমের মাধ্যমে যে বার্তা দেওয়া হচ্ছে তা পরিবারসহ সকলের মাঝে আপনারা ছড়িয়ে দেবেন। এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে যে কার্যক্রমের শুরু হলো, তার মাধ্যমে বিশাল জনগোষ্ঠীকে এর আওতায় নিয়ে আসা হবে। আজ মঙ্গলবার ডিএসকের পক্ষ থেকে চসিক পরিচ্ছন্ন বিভাগের সেবকদের জন্য ৯ হাজার ৮শত মাস্ক ও ৩হাজার ২শত হ্যান্ড গ্লাভস প্রশাসকের হাতে তুলে হস্তান্তর করা হয়। এসময় প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, চসিক পরিচ্ছন্ন বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান কর্মকর্তা মো. মোরশেদ আলম ডিএসকের প্রকল্প কর্মকর্তা আরেফাতুল জান্নাত, প্রজেক্ট অফিসার উজ্জল শিকদার উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া চসিকের পরিচ্ছন্ন সেবকদের জন্য চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজনের নিকট রোটারি ক্লাব অব চিটাগাং ডাউনটাউনের পক্ষ থেকে ৭শত পিস কটম মাক্স প্রদান করা হয়। এ সময় চসিক সচিব আবু সাহেদ চৌধুরী, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, রোটারি ক্লাবের সভাপতি রোটারিয়ান দিদারুল আলম, সহ-সভাপতি রোটারিয়ান আবুল কালাম আজাদ, সচিব রোটারিয়ান ফরহাদুল ইসলাম, রোটার‌্যাক্টর পিপি এরশাদ উল্লাহ বাবলু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আর পড়ুন:   চসিকের সাথে সাধারণ জনগণের সরাসরি সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্যই এ গণস্বাক্ষাতকারের ব্যবস্থা

এনএসআই’র অতিরিক্ত পরিচালকের সাথে চসিক প্রশাসকের সৌজন্য সাক্ষাত

চসিক প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তফা কামাল রুশো

মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ  ও দেশের অভ্যন্তরীণ শৃঙখলা রক্ষায় এনএসআই’র ভূমিকা অনস্বীকার্য বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন। তিনি আজ  মঙ্গলবার সকালে গরীবউল্লাহ শাহ মাজার সংলগ্ন এনএসআই কার্যালয়ে এনএসআই’র অতিরিক্ত পরিচালক মো. ইউসুফ আলী হাওলাদারের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে একথা বলেন। এসময় এনএসআই’র যুগ্ম পরিচালক মোহাম্মদ শরিফুল হাসান, উপ পরিচালক মোহাম্মদ আলী, আব্দুল মুকিত ও খায়রুল বশর উপস্থিত ছিলেন। প্রশাসক  দেশের আইন শৃঙখলা ও দুর্যোগকালীন সময়ে এনএসআই যে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে তৎজন্য চসিকের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, তিনি নগরীর আইন শৃঙখলার উন্নয়ন, সন্ত্রাস, মাদক বন্ধে এনএসআই’র সহযোগিতা কামনা করেন।

প্রশাসকের সাথে ব্রিগেডিয়ার জেনারেলের  সৌজন্য সাক্ষাত

নগরীর পিসি রোড ও হালিশহর আর্টিলারীর আশপাশস্থ রাস্তার উন্নয়ন কাজসহ বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন হালিশহর আর্টিলারী সেন্টার ও স্কুলের কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তফা কামাল রুশো। আজ মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজনের সাথে তাঁর দপ্তরে সৌজন্য সাক্ষাতকালে তিনি এই আহবান জানান। এসময় প্রশাসক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এসব রাস্তাগুলোর উন্নয়ন কাজ ও সংস্কার কাজ সম্পন্ন করা হবে এবং তাদের  যেকোন কাজে চসিকের সহযোগিতা অব্যহত থাকবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন। তিনি বলেন, দেশের সেবা এবং শৃংখলা রক্ষায় সেনাবাহিনী যে অগ্রণী ভূমিকা রাখছে তা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। হালিশহর এলাকায় দেখভাল করা এবং সৌন্দর্যবর্ধন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য তাদের প্রতি অনুরোধ জানান। প্রশাসক  বলেন, সকলের সহযোগিতা পেলে এশহর একটি নান্দনিক শহরে পরিণত হবে। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তফা কামাল রুশো তাদের পক্ষ থেকেও সর্বাত্বক সহযোগিতা করা হবে বলে প্রশাসককে জানান। এ সময়  উপস্থিত ছিলেন আর্টিলারী সেন্টার  ও স্কুল এর জিএসও-১ লে. কর্ণেল জমির উদ্দিন আহমদ চৌধুরী, চসিক সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা  মুফিদুল আলম ও প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম।

আর পড়ুন:   শোকের মাস আগস্ট শুরু

চসিকের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী ও স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট (যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ) জাহানারা ফেরদৌস  এর নেতৃত্বে আজ মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম মহানগর এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। অভিযানকালে নগরীর সদরঘাট থানাধীন মাদারবাড়ী নেওয়াজ হোটেলের মোড় এলাকায় অবৈধভাবে ফুটপাত দখল করে দোকানের অংশ বর্ধিত করা এবং ফুটপাত ও রাস্তায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পন্য সামগ্রী রেখে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করায় দোকানের বর্ধিত অংশ উচ্ছেদ ও পন্য সামগ্রী অপসারন করা হয়। এসময় ৮ ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানকে  সাত হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই অভিযানে জুবিলী রোডস্থ শাহ আমানত সিটি কর্পোরেশনের সুপার মার্কেটের সম্মুখের অবৈধ ভাসমান দোকানপাট অপসারণ করা হয় এবং মার্কেটের অভ্যন্তরের চলাচলের পথ থেকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের স্তুপকৃত পণ্য সামগ্রী অপসারণ করে চলাচলের পথ উম্মুক্ত করা হয়।অভিযানকালে সিটি কর্পোরেশনের  সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও স্থানীয় থানা পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটদ্বয়কে সহায়তা প্রদান করেন।

আগামীকালের ক্যারাভান কর্মসূচী

নগরীর ২নং গেট হতে অক্সিজেন পর্যন্ত চসিক এর প্রকৌশল বিভাগ ও পরিচ্ছন্ন বিভাগের সমন্বয়ে গঠিত টিম নিয়ে ‘নগর সেবায় ক্যারাভান’ শীর্ষক কর্মসূচী আগামীকাল বুধবার বিকেল ৩টায় অনুষ্ঠিত হবে। এতে সংশ্লিষ্ট সকলকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ করা হলো।