৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, চট্টগ্রাম মহানগরীর সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শেষ কৃত্যানুষ্ঠানের স্থান অভয়মিত্র মহাশ্মশান উান্নয়ন সংস্কার ও রক্ষণা-বেক্ষণের দায়-দায়িত্ব সিটি কর্পোরেশনের হলেও এ কাজে সহায়তায় বেসরকারীধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের সম্পৃক্ততার আগ্রহকে স্বাগত জানাই। তিনি আরো বলেন, প্রশাসক হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হবার পর মহাশ্মশানটি পরিদর্শনে গেলে এখানকার সমস্যা ও অব্যবস্থাপনাগুলোর বিষয়ে অবগত হই। জানতে পারি পূর্ণিমা-আমবশ্যা তিথিতে কর্ণফুলীতে জোয়ারের সময় মহাশ্মশানটিতে হাঁটু পানি দাঁড়িয়ে যায়। এ সময় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শবদেহের শেষকৃত্য সম্পন্ন করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এই সমস্যার প্রধান উপায় হলো শ্মশানটি ২-৩ ফুট মাটি ভরাট করে উঁচু করা। এছাড়া এখানকার মন্দির সংস্কার ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত উন্নয়নও প্রয়োজন। তিনি আজ বৃহস্পতিবার(১০(সেপ্টেম্বর)  সকালে টাইগারপাসস্থ চসিক নগর ভবনে অভয়মিত্র মহাশ্মশানের সংস্কার ও উন্নয়নে সহায়তা প্রদানে আগ্রহী অদুল-অনিতা ট্রাস্টের কো-চেয়ারম্যান শ্রীমতি অনিতা চৌধুরীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাতকালে এসব কথা বলেন। তিনি অদুল-অনিতা ট্রাস্টকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়নে ধর্মানুরাগী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠারেনর সহায়তা সত্যিকার অর্থেই একটি ধর্মীয় ও মানবিক শুভ সামাজিক উদ্যোগ। আশাকরি অভয় মিত্র মহাশ্মশানের উন্নয়ন ও অবকাঠামোগত স্থাপনায় চসিকের পাশাপশি অদুল-অনিতা ট্রাস্টের সহায়তা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের আকাঙ্খা পূরণের দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। প্রশাসক চসিকের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম মানিককে অভয়মিত্র মহাশ্মশানের উন্নয়নে করনীয় বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরী করার নির্দেশনা দেন। সৌজন্য সাক্ষাতকালে  চসিক সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী লে.কর্ণেল সোহেল আহমদ,প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটির কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক ডা.অঞ্জন কুমার পাল উপস্থিত ছিলেন।

চিটাগাং শপিং কমপ্লেক্স ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও ইঞ্জিনিয়ারদের সাথে বৈঠকে সুজন

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন নাসিরাবাদ শপিং কমপ্লেক্স আলো-বাতাস চলাচল, পার্কিং প্লেস ও অভ্যন্তরীন প্রশস্থ চলাচল ব্যবস্থাসহ আগের মত ক্রেতা-বিক্রেতা বান্ধব পরিবেশ বজায় রাখার জন্য সংস্কার ও উন্নয়ন কাজের নির্মাতা প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেন। কয়েকজন দোকানদারের আপত্তির প্রেক্ষিতে তিনি বিষয়গুলো খতিয়ে দেখতে সিডিএ, চুয়েট, সিটি কর্পোরেশন ও নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলীর সমন্বয়ে একটা টিম গঠন করে নির্মাণকাজের কোনো  ত্রুটি আছে কিনা কিংবা বিদ্যমান ভবনের সম্প্রসারণের ফলে পরবর্তীতে রানা প্লাজার মত কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা দ্রুত এ বিষয়গুলো যাছাই করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য চসিক প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। নীচতলায় বিদ্যমান মার্কেটের দোকান মালিকগণ মালামাল রেখে চলাচলের পথ সংকুচিত রাখার বিষয়ে তিনি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর সহযোগিতা নিয়ে সবাইকে জরিমানা করার এবং প্রয়োজনে ট্রেড লাইসেন্স বাতিলের জন্য প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেন। তিনি আজ বৃহস্পতিবার(১০(সেপ্টেম্বর)  সকালে টাইগারপাসস্থ  চসিক নগরভবনে চিটাগাং শপিং কমপ্লেক্স ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান শামীম কর্পোরেশনের স্বত্বাধিকারী ও সাইটে নিয়োজিত ইঞ্জিনিয়ারদের সাথে বৈঠকে এ নির্দেশনা দেন।  প্রশাসক নির্মাণ কাজের সময় শপিং কমপ্লেক্স এর কিছু অংশ টিন দিয়ে ঘেরাও রাখার বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে তা  উম্মুক্ত করে দিয়ে মানুষ যাতে সহজে সব কর্মকাণ্ড দেখতে পারেন সে বিষয়েও নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এর কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন । তিনি আরো জানান এই কমপ্লেক্সের  ধারণ ক্ষমতা অনুযায়ী ফ্লোর বাড়াতে-কমাতে হবে। কমপ্লেক্স সম্প্রসারণ এর সার্বিক বিষয় পর্যালোচনার জন্য গঠিতব্য কমিটির  রিপোর্ট উপস্থাপন  ও অনুমোদন না হওয়া পর্যন্ত কাজ বন্ধ রাখতে হবে মর্মে তিনি শামীম কর্পোরেশন এর স্বত্ত্বাধিকারীকে জানিয়ে দেন।

আর পড়ুন:   চট্টগ্রামে শনিবার থেকে চালু হচ্ছে আরও এক করোনাল্যাব