৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা কমার পাশাপাশি চট্টগ্রামেও কমেছে নতুন শনাক্তের সংখ্যা। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে করোনাভাইরাস পরীক্ষার সংখ্যা কমে গেছে। নমুনা পরীক্ষা সংখ্যা কমার পাশাপাশি কমেছে নতুন শনাক্তের সংখ্যাও, যদিও পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের সংখ্যা বেড়েছে।
নমুনা পরীক্ষা কম হওয়ার কারণে রোগী শনাক্তের সংখ্যাও কমেছে। যদিও এখনো পরীক্ষার বিবেচনায় প্রতি ৪জনে একজন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হচ্ছে। আগে এই হার ছিল ২১ শতাংশের কাছাকাছি।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী, যারা সুস্থ হয়ে গেছেন, তাদের দ্বিতীয়বার আর পরীক্ষা করানোর দরকার হচ্ছে না। এজন্য পরীক্ষার সংখ্যা কিছুটা কমেছে।
পরীক্ষা করানোর জন্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক একটি ফি ধার্য করা হয়েছে। সেই কারণে কিছুটা কমতে পারে।
এছাড়া মানুষের মধ্যে আতঙ্ক অনেকটাই কমে গেছে। মানুষ নমুনা পরীক্ষা করানোর ব্যাপারে আগ্রহ দেখাচ্ছে কম।
প্রতিদিনের মতো চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘন্টায় মাত্র ৩৮৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৭০ জন করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন।এর মধ্যে নগরের ৬৩ জন ও বিভিন্ন উপজেলার ৭ জন ।
এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগির সংখ্যা দাঁড়ালো মোট
১৩ হাজার ৬৯৯ জন। এর মধ্যে নগরের ৯ হাজার ৫৬০ জন ও বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা ৪ হাজার ১৩৯ জন ।
এদিকে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় ১জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ পর্যন্ত মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ২২৮জন। এর মধ্যে নগরের ১৬১ জন ও উপজেলার বাসিন্দা ৬৭ জন।
আজ রবিবার (২৬ জুলাই) সকালে চাটগাঁর বাণীকে এসব তথ্য জানান চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি।
‘নমুনা পরীক্ষা কম, শনাক্তের সংখ্যাও কম’- এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বির মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি চাটগাঁর বাণীকে বলেন, ‘এ মুহূর্তে পুরোপুরি নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না। বাস্তব অবস্থা জানা যাবে কোরবাণীর ঈদের ১/২সপ্তাহ পর। অধিক জনসংখ্যা যখন বিভিন্নভাবে একসাথে জমায়েত হবে, মুভমেন্ট করবে তখন করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রকৃত আলামত বুঝা যবে’।
ফি নির্ধারণের পর অযাচিত নমুনা পরীক্ষা কমে গেছে উল্লেখ করে সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘হাসাপাতালগুলোতে এখন রোগির কোনো চাপ নেই। সংক্রণের মাত্রা যদি বাড়তো তাহলে হাসপাতাল ও বাসাবাড়িতে রোগির সংখ্যা বেড়ে যেতো, বাড়তো মৃত্যুর সংখ্যাও, সেটাতো হচ্ছে না’।
চট্টগ্রামে গতকালের নমুনা পরীক্ষা রিপোর্ট সম্পর্কে সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান,
শনিবার ফৌজদারহাটের বিআইটিআইডিতে ১৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে ১৩ জনের শরীরে । এর মধ্যে নগরের ৯ জন ও উপজেলা পর্যায়ের বাসিন্দা ৪ জন ।
এছাড়া শনিবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ৯৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৮ জন। এর মধ্যে নগরের ১৭ জন ও উপজেলার বাসিন্দা ১ জন।
চট্টগ্রাম ভেটেরিনারী বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৪৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন নগরের ৪ জন।
শনিবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৩ জন।আক্রান্ত সবাই নগরের।
শেভরণ ল্যাবে ৫১ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন ২২ জন। এর মধ্যে নগরের ২০ জন ও উপজেলার ২ জন ।
গতকাল শনিবার চট্টগ্রামের কারও নমুনা পরীক্ষা হয়নি কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ও ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে।
চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা পর্যায়ে করোনায় আক্রান্ত ৭ জনের মধ্যে সাতকানিয়ার ১জন, পটিয়ার ১জন, বোয়ালখালীর ১জন, হাটহাজারীর ২জন ও ১ জন করে আছেন সীতাকুণ্ড ও মিরসরাইয়ে ।
চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছেন ৬৭ জন।এ পর্যন্ত মোট ১ হাজার ৯০০ জন সুস্থ হয়েছেন ।