৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

করোনা সংক্রমণ রোধে গেল রাত ১২টার পর থেকেই ২১ দিনের জন্য উত্তর কাট্টলী লকডাউন হয়ে গেল। ইতোমধ্যে  প্রশাসনের সকল প্রস্তুতিও সম্পন্ন হয়েছে। অতি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকেই বের হতে পারবেন না। যার যা প্রয়োজন তা নিয়ন্ত্রণ কক্ষের নম্বরে জানালে তা পৌঁছে যাবে ঘরে। শেষ মুহূর্তে তিনটি সিদ্ধান্তে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে বিসিক শিল্প এলাকা খোলা থাকবে। চালু থাকবে ওষুধের দোকান। অন্যদিকে ওই এলাকায় সকাল ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ব্যাংকগুলো খোলা থাকবে শুধু আড়াই ঘণ্টার জন্য।

উত্তর কাট্টলীর ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক যথারীতি চালু থাকবে। কিন্তু কোনো যানবাহন এই অংশে থেমে যাত্রী উঠানামা করতে পারবে না। আন্তঃজেলার যেসব বাস কাউন্টার এই ওয়ার্ডের সীমানায় আছে সেগুলোও বন্ধ থাকবে। প্রথমে বিসিক শিল্প এলাকার কারখানাগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হলেও ১৫ জুন তা পরিবর্তন করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিল্প এলাকার কারখানাগুলো চালু রাখা হবে। তবে পুরো ওয়ার্ডে থাকবে প্রশাসনের কড়া নজরদারি।

উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডে মোট প্রবেশপথ রয়েছে ২০টি। প্রশাসনের সহায়তায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ইতিমধ্যে এই প্রবেশপথগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে কৈবল্যধাম সড়ক, কর্নেল জোনস সড়ক, ঈশান মহাজন সড়ক, সাগরিকা সড়ক, টোল সড়ক, সিডিএ আবাসিক সড়ক, মোস্তফা হাকিম কলেজ সড়ক, সাগরিকা বিটেক সড়ক, নিউ মনসুরাবাদ সড়ক, সাগরিকা আলিফ সড়কসহ আরও কিছু প্রবেশপথ।

এ বিষয়ে নগর পুলিশের উপকমিশনার (বিশেষ শাখা) মো. আব্দুল ওয়ারিশ বলেন, ‘পুলিশ আনসারসহ দুই শতাধিক ফোর্স ১২টার আগেই কাজে নেমে পড়েছে। আমাদের প্রথম সিদ্ধান্ত ছিল বিসিক শিল্প এলাকাও বন্ধ রাখার। কিন্তু ১৫ জুন মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের আলোকে বিসিক শিল্প এলাকা চালু থাকবে। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়টি স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান নিশ্চিত করবে। এ বিষয়ে আমাদের মনিটরিং আরও জোরদার হবে।’

আর পড়ুন:   দেশে করোনাভাইরাসে প্রাণ গেল ১৫জনের, নতুন আক্রান্ত দুই হাজার ২৯

লকডাউন নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পরিচালিত হবে ভ্রাম্যমাণ আদালত— এই তথ্য জানিয়ে নগর পুলিশের এই উপকমিশনার আরও জানান, ‘লকডাউন এলাকার অফিস আদালত বন্ধ থাকবে। আবার যাদের অফিস লকডাউন এলাকায় নয় তারা অফিস থেকে ২১ দিনের ছুটিতে থাকবেন। লকডাউন এলাকার বাসিন্দা হওয়ায় তাদের অফিসে যাতায়াত বন্ধ থাকবে।’

বেসামরিক প্রশাসনের পাশাপাশি সেনা টহল জোরদার করার বিষয়টি নিশ্চিত করে ২৪ পদাতিক ডিভিশনের পক্ষে সমন্বয়ক মেজর আবু সাঈদ জানান, ‘রাত ১২টার পর থেকে লকডাউন হলেও সাড়ে ১১টা থেকেই আমাদের টহল টিম কাট্টলী এলাকায় কাজ শুরু করেছে। জিওসি ২৪ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার চট্টগ্রাম এরিয়া মেজর জেনারেল এসএম মতিউর রহমানের নির্দেশনায় লকডাউন কার্যকর করতে ২৪ পদাতিক ডিভিশনের একটি টহল দল রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা উত্তর কাট্টলীতে সার্বক্ষণিক কার্যক্রম চালিয়ে যাবে।’

প্যানেল মেয়র ও উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নিছার উদ্দিন আহমদ মঞ্জু জানান, ‘সরকারের সিদ্ধান্তের আলোকে বন্দর সচল রাখতে বন্দরের সাথে সম্পৃক্ত সকল প্রতিষ্ঠান চালু রাখতে হবে। তাই আমার ওয়ার্ডের বিসিক শিল্প এলাকা, কন্টেইনার ইয়ার্ড চালু থাকবে। তবে তাদেরকে লিংক রোড ব্যবহার করতে হবে। তাদের কোনো গাড়ি কিংবা জনশক্তি ওয়ার্ডের কোনো সড়ক ব্যবহার করতে পারবে না বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগে ওষুধের দোকান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত ছিল, এখন ওষুধের দোকান খোলা রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ব্যাংকগুলো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত ছিল। সেটাও পরিবতর্ন হয়েছে। ব্যাংকিং কার্যক্রম চলবে  সকাল ১০টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ।’