৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

তিনদিনের জন্য বন্ধ  ফৌজদারহাট বিআইটিআইডির  প্রধান করোনার নমুনা পরীক্ষাগার । তাই নগরীর দু’ল্যাবই এখন  ভরসা।  শুক্রবার  (২৯মে)চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব এবং কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে ৩৮৯টি নমুনা পরীক্ষার মধ্যে ১৫৯টি করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে।  ১৫৯ জনের মধ্যে মহানগরীর ১১৫ জন ও বিভিন্ন উপজেলার ৪৪ জন। আর এদিকে নতুন করে শনাক্ত ১৫৯ জনসহ এ নিয়ে চট্টগ্রাম জেলায় করোনা আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৫৮৩ জনে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে মারা গেছেন ৭১ জন। এ পর্যন্ত চিকিৎসা নিয়ে বাসায় ফিরে গেছেন ২০৫ জন রোগী ।

সিভিল সার্জন থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে জানা যায়, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ২৩১টি নমুনার মধ্যে পজিটিভ হয়েছে ৯৭ জনের। এ ৯৭ জনের মধ্যে ৯৩ জন মহানগরীর এবং ৪ জন বিভিন্ন উপজেলার।

যাদের মধ্যে নগর পুলিশের ১২ জন সদস্য রয়েছেন। পুলিশ ও চিকিৎসক ছাড়াও প্রথমবারের মতো জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থায় (এনএসআই) হানা দিয়েছে এ ভাইরাস।

চমেকের ল্যাবে শুক্রবার গোয়েন্দা সংস্থার ১০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়, যাদের মধ্যে ৩৫ বছর বয়সী এক সদস্যের শরীরে কোভিড-১৯ অস্তিত্ব পাওয়া যায়।

চমেকের চিকিৎসক ছাড়াও নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মী রয়েছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া চিকিৎসকদের মধ্যে হৃদরোগ বিভাগের এক সহযোগী অধ্যাপক, গাইনি বিভাগের নারী চিকিৎসকসহ বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসক রয়েছেন।

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৪১টি নমুনার মধ্যে পজিটিভ হয়েছে ৬১টি । এই ৬১টির মধ্যে ২২টি মহানগরীর এবং উপজেলার ৩৯টি রয়েছে। কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ১৭টি নমুনার মধ্যে ১জনের পজিটিভ পাওয়া গেছে। তিনি লোহাগাড়া উপজেলার বাসিন্দা।

এদিকে উপজেলার ৪৪ জন রোগীর মধ্যে- লোহাগাড়ায় ১জন, আনোয়ারায় ১জন, চন্দনাইশে ১৩ জন, পটিয়ায় ১৩ জন, বোয়ালখালীতে ৫ জন, রাউজানে ১জন, হাটহাজারিতে ১জন, সীতাকুণ্ডে ৮জন ও সন্দ্বীপে একজন রয়েছেন।এদিকে নতুন করে ১৫৯ জন করোনা শনাক্ত হওয়ায় মোট রোগীর সংখ্যা হলো ২,৫৮৮ জন।