১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

সব দাবি পূরণে সরকার ও পুলিশ কাজ করছে জানিয়ে শিক্ষার্থীদের ঘরে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

বৃহস্পতিবার (২ আগস্ট) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানান ডিএমপি’র অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে মনিরুল ইসলাম বলেন, তোমাদের যা যা দাবি রয়েছে তা বাস্তবায়নে সরকার ও পুলিশ কাজ করছে। আপাতত তোমাদের ঘরে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করছি।

শিক্ষার্থীদের ঘরে রাখতে শিক্ষক ও অভিভাবকদেরও অনুরোধ জানান তিনি।

তিনি বলেন, শিশুদের কাছ থেকে অনেক সময় অনেক কিছু শেখার আছে। শিক্ষার্থীরা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে কী কী করতে হবে। আমরা সে অনুযায়ী কাজ করছি।

মনিরুল ইসলাম বলেন, শিক্ষার্থীদের সব দাবি মেনে নেওয়ার বিষয়ে সরকার ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনার পর পুলিশের ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা জোরদার করা হয়েছে। বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) ও পুলিশ যৌথভাবে অভিযান পরিচালনা করে গাড়ির কাগজপত্র পরীক্ষা করছে। শিক্ষার্থীরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে লাইসেন্স পরীক্ষার কারণে গাড়ির দীর্ঘ জটলা সৃষ্টি হচ্ছে। এর ফলে মুমূর্ষু রোগী, হজ্বযাত্রী ও বিদেশগামীদের ভোগান্তি হচ্ছে। তাই তাদের ঘরে ফিরে যেতে অনুরোধ করবো।

কোনো ধরনের উস্কানিতে কান না দিতে শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ছবি ছড়িয়েছে, যেখানে এক পুলিশ সদস্য এক ছাত্রের গলা চেপে ধরতে দেখা গেছে। কিন্তু ছবিটি ২০১৩ সালের, আর এ ঘটনায় সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) পলাশ চন্দ্র শাস্তির মুখোমুখি হয়েছিলেন। আরেকটি ছবিতে এক ছাত্রীকে পুলিশ লাঠিচার্জ করতে দেখা গেছে, সেই ছবিটিও ২০১২ সালের। এ থেকে প্রমাণিত হয় কেউ আন্দোলনের সুযোগ নিয়ে ছাত্রদের উস্কানি দিচ্ছে। স্বার্থান্বেষীরা এ পর্যন্ত ৩শ’ গাড়ি ভাংচুর করেছে, এর মধ্যে পুলিশের পাঁচটি পিকআপ ভ্যানও রয়েছে। এ পর্যন্ত আটটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে।

যারা উস্কানি দিয়ে এ ধরনের কাজ করছে তাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে বলেও জানান তিনি।

আর পড়ুন:   ফের দুই দিনের রিমান্ডে ডা. সাবরিনা

আন্দোলনরত শিশুদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ডিএমপি ও পুলিশ কথা দিচ্ছে, আপনাদের দাবি বাস্তবায়ন হবে। আপনারা কোনো কথায় বিভ্রান্ত হবেন না। যারা এই সুযোগে ছাত্রদের বিভ্রান্ত করছে, তাদেরও শুভবুদ্ধির উদয় হোক।

গত ৩১ জুলাই শিশুদের উপর লাঠিচার্জ করার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে পুলিশের এ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, এ বিষয়ে যদি দেখা যায়, কোনো পুলিশ সদস্য দায়িত্বের বাইরে গিয়ে কোনো কাজ করেছে, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ আন্দোলনে শিশুদের কথা মাথায় রেখে পুলিশ অনেক ক্ষেত্রে আইনের যথাযথ প্রয়োগ করেনি। ছাত্রদের বিষয়টি পুলিশ মানবিকভাবেই দেখেছে।

লাইসেন্স পরীক্ষার সময় অনেক পুলিশের ড্রাইভারদের লাইসেন্স পাওয়া যায়নি, এ বিষয়ে জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, পুলিশের সব ড্রাইভারেরই লাইসেন্স রয়েছে। অনেক সময় সঙ্গে নিয়ে যান না কিংবা অনেক সময় এমটি বিভাগে তাদের লাইসেন্স জমা রাখে। তাই হয়তো অনেক ক্ষেত্রে তাৎক্ষণিকভাবে তারা লাইসেন্স দেখাতে পারেননি।