[bangla_date] || [english_date]

নিজস্ব প্রতিবেদক *

কারবালার ময়দানের যে ঘটনা ঘটেছে তারই পুনরাবৃত্তি ১৫ আগস্ট ঘটেছিল বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (৮ মে) দুপুরে রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্পে হজ কার্যক্রম উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, কারবালা ময়দানে নারী ও শিশুদের হত্যা করা হয়নি। কিন্তু বাংলাদেশে পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট নারী-শিশু কেউ রেহাই পায়নি।

তিনি বলেন, ওই দিন আমি ও আমার ছোট বোন বিদেশে থাকায় বেঁচে যাই। কিন্তু এই বেঁচে যাওয়াটাও বড় কষ্টের। ছয় বছর দেশে আসতে পারিনি।

ইসরায়েলের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করে সরকারপ্রধান বলেন, ফিলিস্তিনে গণহত্যা চালাচ্ছে ইসরায়েল। তারা নারী-শিশু কাউকে রেহাই দিচ্ছে না। ফিলিস্তিনিদের অধিকার কেউ কেড়ে নিতে পারে না। সেই অধিকার তাদের দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের সকল মুসলিম দেশগুলো একসঙ্গে কাজ করলে ফিলিস্তিনিসহ বিশ্ব মুসলিমের দাবি আদায় সহজ হত। ইসলামের নামে কিছু লোক অপকর্ম করে মুসলমানদের বদনাম দিয়ে যায় এটি দুঃখজনক।

এ সময় হজযাত্রীদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য আশকোনা হজক্যাম্প এবং বিমানবন্দর রেলস্টেশন থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত আন্ডারপাস করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ আজকে অনেক এগিয়ে গেছে। ঘরে বসেই হজের কাজ সম্পন্ন করতে পারছেন। হজের রেজিস্ট্রেশন সরাসরি অনলাইনে আমরা করে দিয়েছি। ডিজিটাল সেন্টার করে দিয়েছি, সেখানেও রেজিস্ট্রেশন করতে পারেন। এরপরও যেন কেউ হয়রানির শিকার না হয় তা লক্ষ্য রাখতে হবে।

তিনি আরও বলেন, সৌদি আরবে বাংলাদেশি হজ যাত্রীদের ভোগান্তি লাঘবে আওয়ামী লীগ সরকারই কাজ করেছে। জেদ্দা বিমানবন্দরে আমরা ছাউনি ভাড়া নিয়েছি। এখন আর জেদ্দা বিমানবন্দরে ভোগান্তিতে পড়তে হয় না।

রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্পে ২০২৪ সালের জন্য হজ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (৮ মে) সকালে আনুষ্ঠানিকভাবে হিজরি ১৪৪৫ সালের হজ কার্যক্রমের উদ্বোধন ঘোষণা করেন তিনি।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী হজযাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন এবং তাদের বিভিন্ন সুবিধা-অসুবিধার খোঁজখবর নেন।

হজযাত্রীরা যাতে নির্বিঘ্নে পবিত্র হজ পালন শেষে আপনজনদের কাছে ফিরে আসতে পারেন সেই জন্য দোয়া করেন শেখ হাসিনা।

একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী সৌদি আরবে হজ পালনকালে হজযাত্রীদের দেশ ও জনগণের জন্য দোয়া করার আহ্বান জানান।

এ বছর বৃহস্পতিবার থেকে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের নিয়ে হজ ফ্লাইট চালু হওয়ার কথা রয়েছে।

জানা গেছে, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে প্রথম হজ ফ্লাইট বিজি-৩৩০১ বিমানটি ৪১৯ জন যাত্রী নিয়ে সকাল ৭টা ২০ মিনিটে সৌদি আরবের জেদ্দার উদ্দেশে যাত্রা করবে।

একই দিন দুপুর ১টায় সৌদি আরবের ফ্লাইনাস এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বাংলাদেশি হজযাত্রীদের নিয়ে জেদ্দার উদ্দেশে হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যাওয়ার কথা রয়েছে।

ঢাকা হজ অফিসের আইটি ইনচার্জ কাজী মো. মুরাদ ই আলম জানান, এ বছর মোট ৮৫ হাজার ২৫৭ বাংলাদেশি হজ পালন করতে পারবেন। তাদের মধ্যে ৪ হাজার ৫৬২ জন সরকারি ব্যবস্থাপনায় এবং বাকি ৮০ হাজার ৬৯৫ জন ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনায় হজ পালন করবেন।

তিনি আরও জানান, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালন করতে ইতোমধ্যে চার হাজার ৩১৪ হজযাত্রী নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন এবং ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনায় হজ পালন করতে ৭৮ হাজার ৮৯৫ হজযাত্রী নিবন্ধিত হয়েছেন।

আগামী ৯ মে থেকে ১০ জুন পর্যন্ত জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ১১৭টি হজ পূর্ব ফ্লাইটে করে ৪৫ হাজার ৫২৫ জন এবং মে মাস থেকে ১২ জুনের মধ্যে সৌদি আরবে ফ্লাইনাস এয়ারলাইন্স ৪৩টি হজপূর্ব ফ্লাইটে করে বাকি হজযাত্রীদের হজ পালন করতে সৌদি আরবে নিয়ে যাবে।

বাংলাদেশ বিমান ২০ জুন সৌদি আরব থেকে বাংলাদেশি হজযাত্রীদের নিয়ে ফিরতি ফ্লাইট শুরু করবে এবং সৌদি আরবের বিমান সংস্থা ফ্লাইনাস ২১ জুন থেকে হজ ফিরতি ফ্লাইট চালু করবে।

ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকায় সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত ঈসা বিন ইউসুফ আল দুহাইলান, হজ এজেন্সিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) সভাপতিসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।