৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

শ্রীলঙ্কাকে ২০ কোটি টাকার ওষুধ উপহার দিলো বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার (৫ মে) রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ওষুধ সামগ্রী হস্তান্তর করা হয়। বাংলাদেশের জনগণের পক্ষ থেকে শ্রীলঙ্কাকে এ ওষুধ সামগ্রী উপহার দেয়া হয়।

এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক, ঢাকায় নিযুক্ত শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনার প্রফেসর সুদর্শন সেনেভিরত্নে, বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, শ্রীলঙ্কা একটি সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে চলেছে৷ প্রতিবেশী ও বন্ধু দেশ হিসেবে আমরা শ্রীলঙ্কার পাশে দাঁড়িয়েছি।

তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় আমরা শ্রীলঙ্কাকে ২০ কোটি টাকার ওষুধ উপহার দিচ্ছি। আগামীতে প্রয়োজন হলে আরো সহায়তা দেব।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক বলেন, প্রতিবেশী দেশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় শ্রীলঙ্কার পাশে আমরা দাঁড়িয়েছি। আমরা সব সময় প্রতিবেশীদের পাশে আছি। আগামীতেও থাকবো।

ঢাকায় নিযুক্ত শ্রীলঙ্কার হাইকমিশনার প্রফেসর সুদর্শন সেনেভিরত্নে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রীলঙ্কার পাশে দাঁড়িয়েছে। আমরা এজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানাই।

সূত্র জানায়, চরম অর্থনৈতিক মন্দায় পড়েছে শ্রীলঙ্কা। খাদ্য সামগ্রীর পাশাপাশি ওষুধের চরম সঙ্কট মোকাবিলা করছে দেশটি। সেখানে ওষুধের জন্য ফার্মেসি থেকে ফার্মেসিতে ঘুরছেন অনেকেই। বহু ফার্মেসি ঘুরেও অনেকেই জরুরি ওষুধ জোগাড় করতে পারছেন না। ”

বৈদেশিক মুদ্রার অভাবে ওষুধের মতো জীবন রক্ষাকারী পণ্য আমদানি করতে পারছে না দেশটি। সবচেয়ে বেশি রুগ্ন হয়ে পড়েছে লঙ্কার স্বাস্থ্যখাত। প্রয়োজনীয় অনেক ওষুধ ফুরিয়ে গেছে সেখানে।

উল্লেখ্য, শ্রীলঙ্কাকে ৮৫ শতাংশ ওষুধই বাইরে থেকে আমদানি করতে হয়।