২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে পূর্ব খৈয়াছড়া ঝর্ণা লেবেল ক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় নিহতদের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ শনিবার(৩০জুলাই)সকাল ১০টায় নিহত মোস্তফা নিরু, সামিরুল ইসলাম হাসান, রিদুয়ান, মারুফ ও সজীবের জানাজা হাটহাজারীর  খন্দকিয়া ছমদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে   অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর  সকাল সাড়ে ১১টায় নজুমিয়া স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয় আরও ৩ জনের  জানাজা। এর আগে নিহতদের মধ্যে মারুফ ও জিসানের জানাজা গতকাল রাতেই সম্পন্ন হয়েছে।

জানাজায় সর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ অংশ নেন।

জানাজায় বক্তব্য রাখছেন হাটহাজারী থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পাশে আছেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ এর প্রশাসক এম এ সালাম

নিহত সবাই হাটহাজারী উপজেলার সন্তান। অনাকাঙ্ক্ষিত এমন মর্মান্তিক  মৃত্যুর ঘটনায় ১১ পরিবারে চলছে শোকের মাতম, শোকে স্তব্ধ  হাটহাজারীবাসী। এসময় হাটহাজারী থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি  ও জেলা পরিষদ  এর প্রশাসক এম এ সালাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহিদুল আলম, হাটহাজারী মডেল থানার ওসি মো. রুহুল আমিনসহ আরও অনেকে  নিহতদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে শোকাহত পরিবারের সদস্যদের সান্ত্বনা জানিয়েছেন।

গতকাল  শুক্রবার (২৯ জুলাই) দুপুর পৌনে ২টার দিকে শিক্ষার্থীদের নিয়ে কোচিং সেন্টারের শিক্ষকরা মিরসরাইয়ে খৈয়াছড়া পাহাড়ি ঝরণা দেখতে যান। সেখান থেকে ফেরার পথে দুপুরে খৈয়াছড়া রেল স্টেশনের কাছে লেভেল ক্রসিং অতিক্রম করার সময় মাইক্রোবাসটির সঙ্গে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী ট্রেন মহানগর প্রভাতীর ধাক্কা লাগে।

ট্রেনটি প্রায় এক কিলোমিটার দূরে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় মাইক্রোবাসটিকে। দুমড়ে-মুচড়ে যায় যানটি। ঘটনাস্থলেই মারা যান ১১ জন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ৬জনকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠান।

দুর্ঘটনার পর  ঢাকা-চট্টগ্রাম রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। পরে রিলিফ ট্রেন এসে দুর্ঘটনাকবলিত মাইক্রোবাসটিকে সরিয়ে ফেলার পর রেল চলাচল স্বাভাবিক হয় ।

র্ঘটনায় নিহতরা হলেন- হাটহাজারী উপজেলার আজিম সাবরেজিস্ট্রার বাড়ির হাজি মো. ইউসুফের ছেলে মাইক্রোচালক গোলাম মোস্তফা নিরু (২৬), চিকনদণ্ডী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মো. ইলিয়াছ ভুট্টোর ছেলে মোহাম্মদ হাসান (১৭), একই ইউনিয়নের খোন্দকার পাড়ার আবদুল হামিদের ছেলে জিয়াউল হক সজীব (২২), ৮ নম্বর ওয়ার্ডের আজিজ মেম্বার বাড়ির জানে আলমের ছেলে ওয়াহিদুল আলম জিসান (২৩), মজিদ আব্বাস চৌধুরী বাড়ির বাদশা চৌধুরীর ছেলে শিক্ষক রিদুয়ান চৌধুরী (২২), পারভেজের ছেলে সাগর (১৭) ও একই এলাকার আবদুল ওয়াদুদ মাস্টার বাড়ির আবদুল মাবুদের ছেলে ইকবাল হোসেন মারুফ (১৭), ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মোজাফফর আহমেদের ছেলে মোসহাব আহমেদ হিসাম (১৬), আব্দুল আজিজ বাড়ির মৃত পারভেজের ছেলে তাসমির হাসান (১৭), মনসুর আলমের ছেলে মো. মাহিম (১৭), ২ নম্বর ওয়ার্ডের আবু মুসা খানের বাড়ির মোতাহের হোসেনের ছেলে মোস্তফা মাসুদ রাকিব (১৯)।

এ দিকে এ দুর্ঘটনার পরপরই বিভাগীয় পার্সোনেল অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) আনছার আলীকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

গতকাল সন্ধ্যায় গেটম্যান সাদ্দাম হোসেনকে মীরসরাই রেলক্রসিং এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ। শনিবার ভোরে একমাত্র গেটম্যান সাদ্দাম হোসেনকে  আসামি করে মামলা হয়েছে।