১৮ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ || ৩রা অক্টোবর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

রাকিবুল হাসান, তানজিম হাসান সাকিবরা একে একে উইকেট তুলে নিচ্ছেন, আর বাংলাদেশের ফাইনালে খেলার স্বপ্ন আরও উজ্জ্বল হয়ে উঠছিল। দারুণ বোলিং করলেন বোলাররা, কিন্তু যশ ধুল তাতে খানিকটা অস্বস্তি যোগ করেন। সেমিফাইনালে অবশ্য জেতার মতো লক্ষ্যই পেয়েছেন সাইফ হাসানরা। ভারত ‘এ’ দলকে ২১১ রানে অলআউট করেছে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। ইমার্জিং এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠতে সাইফ হাসানদের দরকার ২১২ রান।

শুক্রবার (২১ জুলাই) কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টস জিতে ভারতকে ব্যাট করতে পাঠায় বাংলাদেশ। অষ্টম ওভারে তানজিম হাসান সাকিব ভাঙেন ২৯ রানের জুটি। সাই সুদর্শন (২১) বিদায়ের পর নিকিন জোস ও অভিষেক শর্মা প্রতিরোধ গড়েছিলেন। এই দুজনকে টানা দুই ওভারে ফিরিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় বাংলাদেশ।

নিকিনকে (১৭) জাকির হাসানের ক্যাচ বানান সাইফ হাসান। রাকিবুল হাসানের বলে সাকিবের ক্যাচ হন অভিষেক (৩৪)। এরপর যশ ধুল ছাড়া অন্য ব্যাটাররা বোলারদের সামনে অসহায়।

১৩৭ রানে ৭ উইকেট হারায় ভারত। মানব সুতারকে (২১) নিয়ে হাল ধরেছিলেন ধুল। ৪১ রানের এই জুটি ভেঙে যায় রান আউটে। ধুল সতর্ক ব্যাটিংয়ে হাফ সেঞ্চুরি আদায় করেন।

২০০-তে পৌঁছার আগে নবম উইকেট হারায় ভারত। নিজের প্রথম ওভারেই রাজবর্ধন হাঙ্গারগেকারকে (১৫) ফেরান সৌম্য সরকার। ধুল ইনিংস শেষ করে আসতে পারেননি। শেষ ওভারের প্রথম বলে রিপন মন্ডল ফেরান তাকে। ৮৫ বলে ৬ চারে ৬৬ রানে রাকিবুলের ক্যাচ হন ভারতের অধিনায়ক। পাঁচ বল বাকি থাকতে অলআউট ভারত।

বাংলাদেশের পক্ষে মেহেদী হাসান, সাকিব ও রাকিবুল দুটি করে উইকেট পেয়েছেন।