২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

মোহাম্মদ  ইউসুফ*  না ফেরার গ্রহে দৃশ্যহীন হয়ে গেলেন আমাদের একসময়ের রাজপথের অগ্রজ রাজনৈতিক সতীর্থ, বাংলামায়ের সূর্যসন্তান, একাত্তরের রণাঙ্গনের সাহসীযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা।গতকাল (৭জানুয়ারি)রাতে হার্টস্ট্রোক করার পর চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে নেয়া হলে রাত সাড়ে ১০টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।তিনি একপুত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক। আজ সকাল ১১টায় ফৌজদারহাট কে এম উচ্চবিদ্যালয় মাঠে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠানশেষে রাষ্ট্রীয়মর্যাদায় তাঁর মরদেহ পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হবে।
সীতাকুণ্ডের ছাত্র ও যুবরাজনীতির ভ্যানগার্ড সংগঠক, সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি,বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফার আকস্মিক মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।শোকাহত ও হতবিহ্বল হয়ে পড়ে দলীয় নেতাকর্মী ও স্বজনেরা।আওয়ামী লীগ রাজনীতির জন্যে রয়েছে তাঁর অপরিসীম ত্যাগ-তিতিক্ষা।রাজনীতির দুঃসময়ে তিনি শ্রম-মেধা-মনন উৎসর্গ করলেও বিনিময়ে তেমনকিছু পাননি;যৌক্তিক পরিণতি ঘটেনি তাঁর রাজনৈতিকজীবনে।স্থানীয় রাজনীতির প্রতি ছিল তাঁর চরম হতাশা ও ক্ষোভ। অনেকটা অভিমান করেই ত্যাগী এ রাজনীতিক পরিবার-পরিজন, আত্মীয়স্বজন,বন্ধুবান্ধব ও রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের শোকসাগরে ভাসিয়ে দিয়ে চিরতরে বিদায় নিয়েছেন।
আমি প্রয়াত গোলাম মোস্তফার বিদেহী পরমাত্মার প্রশান্তি কামনা করছি।সমবেদনা জানাচ্ছি তাঁর শোকাহত পরিবারের সদস্যদের।