২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ১০ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বিশ্ববাজারের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে দেশে তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম আবারও সমন্বয়ের কথা ভাবছে সরকার। আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর বারিধারার বাসায় গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এ কথা জানান।

তিনি বলেন, বিদ্যুতের দাম সমন্বয়ের ব্যাপারে আমরা অপেক্ষায় আছি, গ্যাসের ব্যাপারে আমরা আরেকটা সমন্বয়ে যেতে চাচ্ছি এবং আমরা মনে করছি, তেলেরও একটা সমন্বয় হওয়া উচিত। ইতোমধ্যে বিপিসি প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকার উপরে নিজে থেকে লস দিয়েছে। বৃহৎ অ্যামাউন্ট এই সময়ে। আমি মনে করি যে, কোথায় কমলো, কোথায় বাড়ল—তা না। বিশ্ব বাজারের সঙ্গে একটা সমন্বয় থাকা উচিত।

সরকারি গাড়ির অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার বন্ধে উদ্যোগ নেয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, যারা গাড়ি ব্যবহার করেন তাদের জ্বালানি সাশ্রয়ের বিষয়ে লক্ষ রাখার জন্য বলছি। মন্ত্রণালয়গুলোকে বলছি। এর মধ্যে একটি বিষয় আমাদের নজরে এসেছে, ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সরকারি গাড়ি যে কাজে দেয়া হয়েছে সেটা না করে যত্রতত্র ব্যবহার করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে, বলেন নসরুল হামিদ।

তিনি আরও বলেন, একটা জিনিস বুঝতে হবে, কারা কী বললো তাদের কথা অনুযায়ী তো আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি না! বিভিন্ন মানুষ বিভিন্নভাবে কথা বলছে। ইউক্রেন যুদ্ধের আগে তো পরিস্থিতি এ রকম ছিল না। আমরা তো পরিস্থিতি কন্ট্রোলে রাখি। ইউক্রেন যুদ্ধের পরও আমাদের পরিস্থিতি চালাচ্ছিলাম। হঠাৎ করে তেল এবং গ্যাসের দাম বেড়ে যাওয়াতে সাময়িক সমস্যা সৃষ্টি করেছে। আমি দেখলাম, হাজারো মানুষ হাজারো পরামর্শ দেয়া শুরু করে দিয়েছে; এটা করলে ভালো হতো, আগে কেন করলেন না। এটা আমাদের চিরাচরিত বাঙালি চরিত্র। তো কে কী বললো সেটা না, আমাদের সায়েন্টিফিক্যালি সমাধানে আসতে হবে।

কয়লা উত্তোলনের বিষয় হলো, পরিবেশের বিষয়টা সবার আগে দেখতে হবে। জায়গাটা কতটুকু ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। ওখানে কৃষকের জমি আছে। তার জমি নিয়ে আমি কাজ করবো, উনার কী হবে? প্রচুর বাসস্থান আছে, সেগুলো স্থানান্তর করতে হবে। মাটির নিচে বিরাট পানির আধার আছে। এগুলো কীভাবে কন্ট্রোল করবো? সারা পৃথিবীতে আন্ডারগ্রাউন্ড মাইনিং খুব কম। আমাদের মতো পরিস্থিতির মাইনিং খুব কম। আমরা যদি ওপেন পিট করি, তখন কী হবে? আমরা একটা মাইন আর আরেকটা কিছু অংশ ওপেন করতে পারি। সেগুলোর জন্য আমরা একটা পরিকল্পনা নিয়ে রেখেছি। সেটা সরকারকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, এত কিছু সমাধান করে কতটুকু সম্ভব। এটা হলো বড় বিষয়। অমুক বললো, আমাদের কয়লা ব্যবহার করে ফেলেন। অমুক বললো, সারা বাংলাদেশ গ্যাসে ভাসছে—সব জায়গা ফুটা করা শুরু করেন। এসব আজগুবি কথা বলে তো সিদ্ধান্ত নেয়া যায় না। বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব দিতে হবে এটা সঠিক, এটা সঠিক না। আর্থিকভাবে সমাধান দিতে হবে এটা ফিজিবল, এটা ফিজিবল না—বলেন জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী।