দ্বিতীয় দলের তিন শতাধিক রোহিঙ্গাকে নিয়ে নৌবাহিনীর একটি জাহাজ নোয়াখালীর ভাসানচরে পৌঁছেছে। বাকি কয়েকটি জাহাজও ভাসানচরের পথে রয়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুর পৌনে একটার দিকে রোহিঙ্গাদের নিয়ে নৌবাহিনীর প্রথম জাহাজটি ভাসানচরে পৌঁছে।

ভাসানচর প্রকল্পের (আশ্রয়ণ প্রকল্প-৩) উপ-প্রকল্পের পরিচালক কমান্ডার এম আনোয়ারুল কবির এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম থেকে রোহিঙ্গাদের দ্বিতীয় দল ভাসানচরে পৌঁছে। প্রক্রিয়া শেষে গ্রহণ করা হচ্ছে। এরপরে তাদের ঘরে তুলে দেয়া হবে।

কক্সবাজারের ঘিঞ্জি শরণার্থী শিবিরগুলো থেকে দ্বিতীয় দফায় স্বেচ্ছায় ৪২৭ পরিবারের আরও ১ হাজার ৭৭৪ রোহিঙ্গা সোমবার বাসে করে ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা দেয়। রাতে চট্টগ্রামে অবস্থানের পর মঙ্গলবার সকালে তাদের নিয়ে ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা দেয় নৌবাহিনীর কয়েকটি জাহাজ। দুপুরে তারা পৌঁছায়।

এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম পর্যায়ে কক্সবাজার থেকে ১ হাজার ৬৪২ রোহিঙ্গা ভাসানচরে যায়।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের জন্য নিজস্ব তহবিল থেকে ৩ হাজার ৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে সরকার। সেখানে এক লাখ রোহিঙ্গা বসবাসের উপযোগী ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। ভাসানচরের পুরো আবাসন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন ও ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। বর্তমানে সেখানে ৩০৬ জন রোহিঙ্গা বসবাস করছে, যারা সাগরপথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার চেষ্টা করে গত মে মাসে ফিরে এসেছিল।