৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

আজ হোক, কাল হোক বিএনপি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসবে এমন মন্তব্য করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান দুদু বলেন, গণতন্ত্রের আন্দোলনে যারা শহীদ হবেন তাদের পরিবারকে ভাতা দেবে বিএনপি।যারা গুম, খুন ও নিখোঁজ হয়েছেন তাদের পরিবারের দায়িত্ব নেবে দলটি।

আজ শ‌নিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে জিয়া প‌রিষ‌দে আয়োজনে‘অন্যায়ভা‌বে চাকরিচ্যুত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. মো. মো‌র্শেদ হাসান খান, জাতীয় বিশ্ববিদ্যাল‌য়ের অধ্যাপক একেএম ওয়া‌হিদুজ্জামানকে চাকরিতে পুনর্বহালের দা‌বি এবং জাতীয় নির্বাচনে জনগণের ভোট প্রদানে অনীহা’এসব কথা বলেন শামসুজ্জামান দুদু।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, যে সরকার এখন আছে, এ সরকারের পরের সরকার হচ্ছে বিএনপি সরকার। আমি বিএনপি করি বলে বলছি না।  আজকের মধ্যে যদি এই সরকারের পতন হয়, তাহলে পরশু দিন বিএনপি সরকার আসবে।  যদি এক মাস পরেও হয়, তাহলে বিএনপি সরকার আসবে।  আওয়ামী লীগের এ বাস্তবতা বুঝতে হবে, দুই মাস পরে হলেও এরপরের সরকার বিএনপি সরকার।

তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা ভাতা পান।  এবং যৌক্তিক কারণেই ভাতা পান।  তাহলে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সাহসী সৈনিক যারা শহীদ হবে, তাদের পরিবার কেন পাবে না? এটা নিশ্চিত করতে হবে এবং আগামীতে যখন বিএনপি সরকার আসবে, তখন এটা নিশ্চিত করবে।

দুদু বলেন, যারা এ সরকারের আমলে অন্যায়ভাবে চাকরিচ্যুত হয়েছেন, তারা সবাই পুনর্বহাল হবেন।  শুধু স্বপদেই না পদোন্নতি দেয়ারও আশ্বাস দেন এ বিএনপি নেতা।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, এমন হতে পারে মোর্শেদ খান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বল্পকালীন উপাচার্য হয়েছেন।  ওহেদুজ্জামান কেউ শুধু স্বপদেই না পদমর্যাদা বাড়িয়ে অবসরে যাবেন।  শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় নয়, দেশের যেখানে যারা অন্যায়ভাবে চাকরিচ্যুত হয়েছে, তাদের সবাই পুনর্বহাল হবে।  কারণ তারা গণতন্ত্র রক্ষার জন্য চাকরিচ্যুত হয়েছেন।  স্বৈরতন্ত্রের বিরোধিতা করেছেন বলেই তারা চাকরিচ্যুত হয়েছে।

এ সমাজে গণতন্ত্রের কথা যে চিন্তা করবে সে আঘাত পাবে, তার বিরুদ্ধে মামলা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন- এক লাখ মামলায় ৩৬ লাখ আসামি হয়েছে। এই আসামিরা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পরবর্তী সরকারে জাতীয় বীর হিসেবে চিহ্নিত হবে। তাদের বিশেষভাবে সার্টিফিকেট দেয়া হবে বলেও জানান বিএনপির এ ভাইস চেয়ারম্যান।

বিএনপির এ নেতা বলেন, যে সমাজে ভিন্নমত পোষণ করা যায় না। সেই সমাজ হচ্ছে জলাশয়, সেই সমাজ হচ্ছে স্বৈরতান্ত্রিক, ১৮ কোটি জনগণের মধ্যে একজন ব্যক্তি যদি ভিন্নমত পোষণ করে তাহলে রাষ্ট্র তাকে রক্ষা করে এটাই আমরা জানি, এটাই গণতন্ত্র। কিন্তু এ সমাজ বদ্ধ সমাজ, অন্ধকারাচ্ছন্ন সমাজ, এই সমাজে গণতন্ত্রের কথা যে চিন্তা করবে সে আঘাত পাবে, মামলা হবে। যারা এক লাখ মামলায় ৩৬ লাখ আসামি হয়েছে এরা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের পরবর্তী সরকারে জাতীয় বীর হিসেবে চিহ্নিত হবে। তাদের বিশেষ ভাবে সার্টিফিকেট দেয়া হবে। মুক্তিযুদ্ধের পরেই তাদের সম্মান হবে।

আ‌য়োজক সংগঠ‌নের চেয়ারমম্যা‌ন বীর মু‌ক্তি‌যোদ্ধা ডা. আব্দুল কুদ্দুসের সভাপ‌তি‌ত্বে আ‌লোচনা সভায় আরো বক্তব্য রা‌খেন আ ন ম এহছানুল হক মিলন, আরও উপস্থিত ছি‌লেন কৃষকদ‌লের আহবায়ক ক‌মি‌টির সদস্য মিয়া মো. আনোয়ার ও কে এম র‌কিবুল ইসলাম রিপন।