ঢাকা ব্যাংক লিমিটেডের নতুন ভাইস-চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শিল্পপতি আবদুল্লাহ আল আহসান । সম্প্রতি ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় তাঁকে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়।

আবদুল্লাহ আল আহসান  একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও রাজনীতি সচেতন ব্যক্তিত্ব। তিনি একাধারে একজন শিক্ষাবিদ, শিল্পপতি, বিনিয়োগকারী ও সমাজসেবক। ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার মাধ্যমে তিনি ৩৫বছরেরও বেশি সময় ধরে সৃজনশীল ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বাংলাদেশের শিল্প ও বাণিজ্যে মূল্যবান অবদান অব্যাহত রেখেছেন।

তিনি এম.কম এবং বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনেস্নাতকোত্তর (এমবিএ) অর্জন করেছেন।মুজিব নগর থেকে প্রকাশিত ‘দৈনিক বাংলার বানী’র বিশেষ সংবাদদাতা হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন তিনি।

আবদুল্লাহ আল আহসান তৎকালীন ভাইস-চ্যান্সেলর জাতীয় অধ্যাপক ডা. নুরুল ইসলামের সময়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের (ইউএসটিসি)-এর উপ-ভাইস চ্যান্সেলর ছিলেন। শিক্ষাবিদ হিসাবে তিনি বাংলাদেশ এবং অন্যান্য সার্কদেশের অসংখ্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের পরামর্শ ও বিভিন্ন সহায়তা প্রদান করছেন। তিনি চট্টগ্রাম চেম্বার অফ কমার্সের প্রাক্তন পরিচালক এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেডের সদস্য। আহসান ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা হিসেবে বাংলাদেশের তেল, টেক্সটাইল এবং কৃষিশিল্পে বিশেষ অবদান রেখেছেন।

তিনি ঢাকা ব্যাংক লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা স্পনসর শেয়ার হোল্ডার ও পরিচালক। তিনি বর্তমানে অ্যারোমা পোল্ট্রি ও অ্যারোমা ফিশারিজ লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক।তিনি দুসিত প্রিন্সেস সমুদ্র এবং স্যান্ডিশোর হোটেল অ্যান্ড রিসর্টস-এর চেয়ারম্যান। তিনি স্ক্যাফার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা। আবদুল্লাহ আল আহসান এর   তিন কন্যা ব্যারিস্টার প্রিয়ঙ্কা আহসান, ব্যারিস্টার ফাতেমা ওয়ারিতাহ আহসান এবং ব্যারিস্টার প্রিয়া আহসান চৌধুরী প্রতিষ্ঠিত কেসওয়ার্কস কনসাল্টিং (একটি আইনী ও কর পরামর্শক সংস্থা) এর চেয়ারম্যান।

কর্মজীবনে তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে ক্রীড়া, রাজনৈতিক, এবং সামাজিক ক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনি বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন। তিনি ‘প্রাচ্যসুর ও নৃত্যকলা’  এর প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান এবং নজরুল সংগীত পরিষদ, চট্টগ্রাম-এর চেয়ারম্যান ছিলেন। এছাড়া তিনি তিন মেয়াদে চট্টগ্রাম সিনিয়র্স ক্লাবের সভাপতি এবং বিভিন্ন বিষয়ক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ফোরামে যুক্ত ছিলেন। তিনি ভুটান কিংডমের অনারারি কনসাল জেনারেল (চট্টগ্রাম) ছিলেন। শ্রীলঙ্কার পুনর্বাসন ও শরণার্থী-বিষয়ক প্রাক্তন মন্ত্রী, সাবেক এমপি জয়লথ জয়া বর্ধনা তাঁকে শ্রীলঙ্কায় মানবাধিকার ফোরামের সম্মানিত সদস্য পদেও ভূষিত করেছিলেন।

আর পড়ুন:   চসিক নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের পরিকল্পনা নির্বাচন কমিশনের নেই