৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

নগরীর পোর্ট কানেকটিং রোডে যত গর্ত রয়েছে তা  ৫দিনের মধ্যে ভরাট করে যান চলাচলের উপযোগী ও আগামী নভেম্বরের মধ্যে অবশ্যই কাজ সম্পাদনের কড়া নির্দেশনা দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন।

আজ বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) পোর্ট কানেকটিং সড়কের সাগরিকা থেকে নয়াবাজার মোড় পর্যন্ত পরিদর্শনকালে তিনি এ নির্দেশনা দেন।

চসিক –এর নবনিযুক্ত প্রশাসক সুজন বলেন, নগরের পোর্ট কানেকটিং সড়কটি অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দীর্ঘসূত্রিতায় নিমজ্জিত হয়ে বছরের পর বছর এ সড়কের উন্নয়নকাজ সম্পন্ন হয়নি- যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ নিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসীর মনে ক্ষোভ সৃষ্টি ও চট্টগ্রামের সৌন্দর্য ও সুনামের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিগত দিনে যে সময় গড়িয়েছে এখন আর সময়ক্ষেপণের কোনো সুযোগ নেই।

তিনি সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও প্রকৌশলীদের হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব আমি সর্বোচ্চ সততার মাধ্যমে পালন করতে চাই। আপনারাও আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সততার সঙ্গে পালন করবেন। যারা দুর্নীতি করেছেন, তারা সাবধান হয়ে যান। আমি যার কাছে অনিয়ম দেখবো, দুই নাম্বারি দেখবো, নগরবাসীর সঙ্গে যারা বেইমানি করবেন তাদের আমি কোনোভাবেই ছাড় দেব না। নগরবাসীর সেবায় নিয়োজিতরা যারা মানুষকে কষ্ট দেয় তাদের আমি ছাড় দেব না। এসব অন্যায়ের সঙ্গে আমি আপস করবো না। ভুল করা অপরাধ নয়। কিন্তু ইচ্ছা করে ভুল করা অপরাধ।

এ শহর আমাদের শহর। পৃথিবীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শহরের একটি চট্টগ্রাম। জলাবদ্ধতা এ শহরের প্রধান সমস্যা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেনাবাহিনীকে দিয়ে জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করাচ্ছেন। উনারা রাতদিন পরিশ্রম করছেন। আশা করছি, এক বছরের মধ্যে একটা স্বস্তিদায়ক অবস্থায় আমরা পৌঁছতে পারবো।

এ সময় চসিক প্রধান প্রকৌশলী লে.কর্নেল সোহেল আহমেদ, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবু ছালেহ, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু সাদাত মোহাম্মদ তৈয়ব, ঠিকাদার মোহাম্মদ মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী, ১১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ ইসমাইল, সাধারণ সম্পাদক মো. আসলাম, নুরুল আমিন, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ফরিদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।