৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

সরকারি নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিন সব ধরনের মাছ আহরণে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছে না জেলেরা। চিংড়ি পোনামাছ ধরতে গিয়ে সমুদ্রের অন্যান্য পোনা মাছও নষ্ট করছে জেলেরা। যারফলে ব্যাহত হচ্ছে সব ধরণের মাছের প্রজনন।

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে আজ মঙ্গলবার (৭ জুলাই) সমুদ্রের বুকে অভিযানে যান চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। অবৈধভাবে মাছ ও বিভিন্ন মাছের পোনা নিধন করার কাজে ব্যবহৃত প্রায় ছয় হাজার মিটার জাল জব্দ করে ধ্বংস করা এবং মেরিন একাডেমি এলাকায় ৫ জেলেকে  ৫হাজার টাকা করে মোট ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুক অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অভিযানে নেতৃত্বদানকারী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক বলেন, অনেক অসাধু নৌকার মালিক ও জেলে সরকারের নিষেধাজ্ঞা না মেনে চিংড়ী পোনামাছ ধরতে গিয়ে অন্যান্য সামুদ্রিক মাছের পোনাও নষ্ট করে দিচ্ছে। যার ফলে মাছের প্রজনন ব্যহত হচ্ছে। অথচ সমুদ্রে মাছ ধরার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এমন অবস্থায় ৫ জন জেলেকে ৫ হাজার টাকা করে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে এবং ৬ হাজার মিটার জাল জব্দ করে তা ধ্বংস করা হয়।অভিযানে আরও উপস্থিত ছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শিরিন আক্তার ।