৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন,  ক্যাসিনো সংস্কৃতি শুরু করা হয়েছে  বিএনপি আমলেই। সাদেক হোসেন খোকা, মির্জা আব্বাসরা এগুলো শুরু করেছিলেন। তখন ক্ষমতার শীর্ষপর্যায় এগুলোর সঙ্গে যুক্ত ছিল। তাই কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

মন্ত্রী  বলেন,  কে শামীম প্রতি মাসে তারেক রহমানকে এক কোটি টাকা দিতো। বিএনপির অনেক নেতাকেও সে পয়সা দিতো। এ ক্যাসিনো কালচার যারা শুরু করেছিলেন তারাও নিয়মিত টাকার ভাগ পেতো। কে কোন দলের বা মতের সেটি না দেখে প্রধানমন্ত্রী ব্যবস্থা নিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার (২৪সেপ্টেম্বর) রাজশাহীর সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বব্যাপী ছড়ানো হয়। সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে গুজব প্রতিরোধে তরুণদের সরব থাকতে হবে। আর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সকলের নিরাপত্তার জন্য তৈরি করা হয়েছে।

এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম বলেন, ‘চলমান অভিযান আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নয়। আওয়ামী লীগ স্বচ্ছ ও পরিচ্ছন্ন একটি দল। আমরা পরিচ্ছন্ন রাজনীতিতে বিশ্বাস করি।’

তিনি বলেন, ‘চলমান অভিযানে নামকরা যে সাত জনের নাম বেরিয়ে এসেছে তাদের মধ্যে ছয় জনই অনুপ্রবেশকারী। এরা আওয়ামী লীগের নয়। এরা মির্জা আব্বাস-খোকার সৃষ্টি। এই দানবগুলোকে এখন ধরা গেছে। এদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলা শেষে রাজশাহীর শিল্পকলা একাডেমীতে ‘তারুণ্যের ভাবনায় আওয়ামী লীগ- গৌরবের অভিযাত্রায় ৭০ বছর’ শিরোনামে একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেন তারা। আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির আয়োজনে এতে রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন উপস্থিত ছিলেন।