৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

“দীর্ঘমেয়াদী ব্যথায় ফিজিওথেরাপিই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন প্রধান চিকিৎসা” প্রতিপাদ্য নিয়ে পালিত হলো বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও আজ রবিবার (০৮সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ ফিজিক্যাল থেরাপি অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএ) উদ্যোগে দেশব্যাপী আলোচনা সভা, শোভাযাত্রা ফ্রি চিকিৎসাসহ সচেতনমূলক নানা কর্মসূচি পালন করে। আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বিশ্ব ফিজিওথেরাপি দিবস উপলক্ষে বিপিএর উদ্যোগে  আজ রবিবার (৮ সেপ্টেম্বর ) সকাল ১১টায় রাজধানীতে কয়েক শতাধিক ফিজিওথেরাপি পেশাজীবী চিকিৎসক ও ছাত্রছাত্রীদের অংশগ্রহণে একটি শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত  হয়। শোভাযাত্রাটি জাতীয় অর্থপেডিক ও ট্রমাটোলজি প্রতিষ্ঠান (নিটোর) থেকে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নিটোরে ফিরে আলোচনা সভার মাধ্যমে শেষ হয়।

সভায় উপস্থিত ছিলেন  বিপিএ এর সভাপতি- ডা. দলিলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক- ডা. ফরিদ উদ্দিন, সহ-সভাপতি ডা. প্রদীপ কুমার সাহা, ডা. ইয়াসমিন আরা ডলি, ডা. আরিফ জুবায়ের, ডা. মঞ্জুরুল আলম মিলন, ডা. মহসিন কবির মিলন, অর্থসম্পাদক ডা. মনিরুল হক ও দপ্তর সম্পাদক ডা. তৌহিদুজ্জামান লিটু। আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান এর ফিজিওথেরাপি বিভাগের কোর্স কো-অর্ডিনেটর সহযোগী অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম ও প্রভাষক ডা. মোসলেম পাটোয়ারী। এসময় বক্তারা বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে ৫০% তো ৮০% ব্যথায় ভুক্তভোগীরা ব্যথার সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছে না। “চিকিৎসা মানেই ঔষধ নয় আর ঔষধ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনেক যেমন ২০১৬ সালে শুধু আমেরিকাতে অতিরিক্ত ঔষধ সেবনে ৬৩,৬৩২ জনের মৃত্যু হয় বলে ধারণা করা হয়। তাই দীর্ঘমেয়াদী ব্যথায় ফিজিওথেরাপি চিকিৎসায় উত্তম সমাধান এবং এক্ষেত্রে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকরাই প্রধান স্বাস্থ্য পেশাজীবী। উল্লেখ্য , বাংলাদেশে জনসংখ্যার প্রায় ১০ শতাংশ মানুষ নানা ধরনের প্রতিবন্ধিতায় ভুগছে। জনসংখ্যার ২০ ভাগের বয়স ৬০ বছরের ওপরে। তাঁরাসহ যারাই বাত-ব্যথা, কোমর, মেরুদন্ড ও ঘাড়ে ব্যথা, ক্রীড়াঘাত, পক্ষাঘাতগ্রস্থতা (প্যারালাইসিস), মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত (স্ট্রোক) সমস্যায় ভুগছেন। সভায় বিপিএ সভাপতি ডা. দলিলুর রহমান বলেন, এই রকম একটি গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসা পদ্ধতি প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের পদক্ষেপের অভাবে বছরের পর বছর সরকারের সব মহলে সব রকম চেষ্টা ও তদবির করেও কোন কুল কিনারা হচ্ছেনা। এমতাবস্থায় জনমানুষের সুস্বাস্থ্যের জন্য সঠিক ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা নিশ্চিতকরণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি ও সরাসরি নিদের্শনা দাবি করছি। আলোচনা সভায় আরো ছিলেন বাংলাদেশ ফিজিওথেরাপি স্টুডেন্ট ইউনিয়ন এর প্রতিনিধি ও ফিজিওথেরাপি ছাত্র-ছাত্রীরা। বাপসুর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী শান্তনু বাড়ৈ।

আর পড়ুন:   আসামের নাগরিক তালিকা থেকে বাদ ১৯ লাখ মানুষ

তাছাড়া দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিপিএর বিভাগীয় কমিটির পক্ষ থেকেও শোভাযাত্রা সমাবেশ ও আলোচনা সভার মাধ্যমে দিবসটি উদ্যাপিত হয়।