৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পদার্থবিদ্যায় ‘লেসার ফিজিক্সে’ বিশেষ উদ্ভাবনের স্বীকৃতিস্বরূপ যৌথভাবে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন আর্থার আসকিন, জেরার্ড মোরউ ও ডোননা স্ট্রিকল্যান্ড।

মঙ্গলবার (০২ অক্টোবর) সুইডেনের স্থানীয় সময় ১১টা ৪৫ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় পৌনে চারটা) নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে রয়্যাল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস।

২০১৮ সালে পদার্থবিদ্যার নোবেলের অর্ধেক পেয়েছেন মার্কিন পদার্থবিদ আর্থার আসকিন এবং বাকি অর্ধেক যৌথভাবে পেয়েছেন ফ্রান্সের পদার্থবিদ জেরার্ড মোরউ ও কানাডার নারী পদার্থবিদ ডোননা স্ট্রিকল্যান্ড। অর্থ্যাৎ পুরষ্কারের ৯ মিলিয়ন সুইডিশ ক্রোনার অর্ধেক পাবেন আর্থার আসকিন এবং বাকি অর্ধেক যৌথভাবে পাবেন জেরার্ড মোরউ ও ডোননা স্ট্রিকল্যান্ড।

বলা হচ্ছে, ৫৫ বছর পর এবার কোনো নারী পদার্থবিদ্যায় নোবেল পেলেন। ডোননা স্ট্রিকল্যান্ডের আগে ১৯০৩ সালে মারি ক্যুরি ও ১৯৬৩ সালে মারিয়া গ্যোপের্ট-মায়ার পদার্থবিদ্যায় নোবেল পান।

পদার্থে প্রথম নোবেল পুরস্কার পান জার্মান পদার্থবিদ উইলহেম রনজেন। এক্স-রে আবিস্কারের জন্য তাকে এ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।

জানা গেছে, বুধবার (০৩ অক্টোবর) রসায়ন, শুক্রবার (০৫ অক্টোবর) শান্তিতে এবং সোমবার (০৮ অক্টোবর) অর্থনীতিতে নোবেল বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে।

তবে এ বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার না দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে সুইডিশ একাডেমি। আগামী বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালে এ বিভাগে একসঙ্গে দু’টি পুরস্কার দেবে। এর একটি ২০১৮ সালের জন্য, অপরটি ২০১৯ সালের।

সুইডিশ একাডেমির সদস্যদের #MeToo স্ক্যান্ডাল ও অর্থনৈতিক অনিয়মের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

১৯০১ সাল থেকে নিয়মিত নোবেল পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। চিকিৎসা, পদার্থ, রসায়ন, সাহিত্য, শান্তি ও অর্থনীতি- এ ছয়টি খাতে বিশেষ অবদান রাখার জন্য পুরস্কারে ভূষিত করে আন্তর্জাতিক নোবেল কমিটি।