৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

 

চট্টগ্রাম নগরীর নিউমার্কেট এলাকায়  মোবাইলফোন চুরির অপবাদ দিয়ে একটি বিপণিবিতানের ছাদে নিয়ে দুই কিশোরীকে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠেছে। এই ঘটনায় ভুক্তভোগী এক কিশোরীর মায়ের মামলার পর ছয় জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পলাতক আছেন আরও দুই জন।

ঘটনাটি ঘটেছে মহানগরের জলসা মার্কেটে। রবিবার মামলার পর পুলিশ ওই মার্কেট, পাথরঘাটা ও আলকরণ এলাকায় অভিযান চালিয়ে আব্দুল আউয়াল ওরফে ডালিম, ফারুক, কবির, জাহাঙ্গীর আলম, বাবলু এবং সেলিমকে গ্রেপ্তার করে বলে জানান কোতয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মহসীন ।

ওসি বলেন, ‘দুই কিশোরীর একজনের মা বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগে আট জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। আসামিদের মধ্যে রুবেল ও এনাম নামে দুই জনকে খোঁজা হচ্ছে। বাকি সবাই ধরা পড়েছে।’

দুই কিশোরির ডাক্তারি পরীক্ষা ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে ওসি মহসীন জানান।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, দুই কিশোরীর একজন আগে জলসা মার্কেটের একটি দোকানে চাকরি করতেন। সেখানকার পঞ্চম তলায় এক ব্যক্তির বোরকা হাউজে নিয়োগ দেয়া হবে জানতে পেরে রবিবার এক বান্ধবীকে সঙ্গে নিয়ে ওই কিশোরী সেখানে যায়। ফেরার সময় দোকানের দুই কর্মচারী মোবাইল ফোন চুরি হয়েছে জানিয়ে দুই কিশোরীকে অভিযোগ করে। দুটি দোকানে নিয়ে কিশোরী দুই জনকে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়।

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কামরুজ্জামান বলেন, ‘এরপর সালিশের কথা বলে দুই কিশোরীকে জলসা মার্কেটের নবম তলার ছাদে নিয়ে গিয়ে তাদের ধর্ষণ করে আসামিরা।’

দুই কিশোরী বাসায় না ফেরায় তাদের স্বজনরা খুঁজতে বের হন। আর জলসা মার্কেট সমিতির লোকজনের সহায়তায় রাত সাড়ে ১০টার দিকে ছাদে তাদের খুঁজে পান পরিবারের সদস্যরা। পরে  পুলিশ এসে তাদের হাসপাতালে নিয়ে যায়।