৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

পাকিস্তানে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। বুধবার (২০সেপ্টেম্বর)তার সঙ্গে মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ এবং জামাতা ক্যাপ্টেন (অব.) সফদরও মুক্তি পান। এর আগে ইসলামাবাদের হাইকোর্ট একটি দুর্নীতি মামলায় নওয়াজ শরিফ ও তার মেয়ে এবং জামাতাকে মুক্তির নির্দেশ দেয়। তাদের দণ্ডও স্থগিত করা হয়।

গতকাল আদালতের রায়ের পর সন্ধ্যায় রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা জেলের সামনে যান পাকিস্তান মুসলিম লীগের (পিএমএল-এন) প্রেসিডেন্ট ও নওয়াজের ভাই শাহবাজ শরিফসহ দলের নেতৃবৃন্দ। তারা জেলের বাইরে নওয়াজ শরিফকে স্বাগত জানান। এরপর কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে তাদের নুর খান বিমানঘাঁটিতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে বেসরকারি বিমানে করে লাহোরে যান নওয়াজ, তার মেয়ে এবং জামাতা। নওয়াজের মুক্তিতে জেলের সামনে বিপুল সংখ্যক সমর্থক আনন্দ-উল্লাস করেন। রাতেই লাহোরে পৌঁছান নওয়াজ শরিফসহ অন্যরা।

গত জুলাইয়ে পাকিস্তানের জাতীয় জবাবদিহিতা আদালত নওয়াজকে কারাদণ্ড দেয়। গতকাল সেই দণ্ডের বিরুদ্ধে আবেদনের শুনানি হয় হাইকোর্টে। বিচারপতি আতাহার মিনাল্লাহ এবং বিচারপতি মিয়াংগুল হাসান আওরঙ্গজেবের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে আবেদনের শুনানি হয়। বিচারপতিরা বলেন, অ্যাভেনফিল্ড মামলার পূর্ণাঙ্গ শুনানি না হওয়া পর্যন্ত আগের দণ্ড স্থগিত থাকবে। আদালত সবার জামিন মঞ্জুর করে। ৫ লাখ রূপির বন্ডের বিনিময়ে তাদের মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দেয় আদালত। ৬ জুলাই এক রায়ে আদালত জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের মালিক হওয়ায় নওয়াজকে দশ বছর এবং জাতীয় জবাবদিহিতা ব্যুরোকে সহায়তা না করার অভিযোগে এক বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মেয়ে মরিয়মকে সাত বছর এবং ব্যুরোকে সহায়তা না করার জন্য এক বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। আর জামাতা সফদরকে এক বছরের দণ্ড দেওয়া হয়।