৮ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ || ২৪শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

 

গত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আঁতাত নিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের দাবির প্রতি সমর্থন জানিয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

খবরে বলা হয়, ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিনকিতে দুই নেতার এক বৈঠকে পুতিন দাবি করেন, রাশিয়া মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করেনি। পুতিনের সে মন্তব্যের প্রতি সমর্থন জানিয়ে, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার মন্তব্যের বিরোধিতা করেছেন। এজন্য নিজ দেশে তীব্র সমালোচনার শিকার হয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

কংগ্রেসের শীর্ষ রিপাবলিকান, হাউজ স্পিকার পল রায়ান বলেন, প্রেসিডেন্টের এটা অবশ্যই বোঝা উচিত যে রাশিয়া আমাদের মিত্র নয়।

প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন তারা নিজের গোয়েন্দা প্রধানও। জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান ড্যান কোটস জনসম্মুখে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রকে ছোট  করার চলমান, পরিব্যাপক প্রচেষ্টার পেছনে রাশিয়া দায়ী। তবে পুতিন এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

সোমবার হেলসিনকিতে প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে বৈঠক করেন ট্রাম্প ও পুতিন। এসময় তাদের ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টারাও তাদের সঙ্গে ছিলেন না।

বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্পকে জিজ্ঞেস করা হয়, মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ নিয়ে তিনি কি নিজ দেশের গোয়েন্দা সংস্থার কথা বিশ্বাস করেন নাকি পুতিনকে বিশ্বাস করেন।

বৈঠকের সময় দুই নেতার ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টারাও তাদের সঙ্গে ছিলেন না। প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প বলেন, প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেছেন রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেনি। আর আমিও তাদের হস্তক্ষেপ করার কোন কারণ দেখছি না। পরবর্তীতে অবশ্য এক টুইটে ট্রাম্প পুনরায় নিজের মন্তব্য-বিরোধী কথা বলেন। টুইটে তিনি বলেন, নিজের গোয়েন্দাদের ওপর তার পূর্ণ আস্থা রয়েছে।

উল্লেখ্য, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার দাবি, রুশ গোয়েন্দারা গত মার্কিন নির্বাচনে হিলারি ক্লিনটনকে পরাজিত করার প্রচেষ্টা চালিয়েছিল।

এদিকে, ট্রাম্পের মন্তব্যে পুরো যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে ট্রাম্প-বিরোধী ঝড় বয়ে যাচ্ছে। এমনকি তার নিজ দলের কর্মকর্তারাও তার সমালোচনায় নেমেছেন। রায়ান বলেন, রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে কোন রকমের নৈতিক সাদৃশ্য নেই। তারা এখনো আমাদের মূল্যবোধ ও আদর্শের প্রতি হিংস্র।

আর পড়ুন:   করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে সবার আগে সাফল্যের খবর শোনাল রাশিয়া

তিনি যোগ করেন, ২০১৬ সালের মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেছিল এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই।

ট্রাম্পের বিবৃতি নিয়ে সিনেট আর্মড সার্ভিস কমিটির শীর্ষ সদস্য সিনেটর জন ম্যাককেইন বলেন, এটা খুবই বাজে পারফরমেন্স ছিল। এর আগের কোন মার্কিন প্রেসিডেন্ট একজন অত্যাচারীর সামনে এরকম শোচনীয়ভাবে নিজেকে  অপদস্থ করেননি।

সিনেট আর্মড সার্ভিস কমিটির অপর এক সদস্য ও জ্যেষ্ঠ রিপাবলিকান সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম এক টুইটে লিখেন, রাশিয়াকে ২০১৬ মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের জন্য দৃঢ়ভাবে জবাবদিহিতা করতে বাধ্য করার সুযোগ ছিল এটি। কিন্তু সুযোগটি শেষ হয়ে গেছে।