১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ হজ নিয়ে ব্যবসা না করার জন্য বাংলাদেশ হজ এজেন্সি অ্যাসোসিয়েশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, মনে রাখবেন হাজিরা কারো দয়া অথবা অনুকম্পা নিয়ে সৌদি আরবে যান না। বরং আপনারা তাদের কাছ থেকে লাভবান হচ্ছেন। তাই হজ ব্যবসার নামে তাদের সঙ্গে প্রতারণা করবেন না, কারণ বিষয়টি খুবই স্পর্শকাতর।

মঙ্গলবার (২ জুলাই ) রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্পে হজ কর্মসূচি-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় হজ ব্যবস্থাপনায় সম্পৃক্ত সরকারি কোনো কর্মচারী অবহেলা করলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান রাষ্ট্রপতি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, হজযাত্রীদের ৯৫ শতাংশের বেশি হজ এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে সৌদি আরব গমন করে থাকেন। অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যায়, অনেক এজেন্সি যেসব সুযোগ-সুবিধার কথা বলে হাজিদের মক্কা-মদিনায় নিয়ে যান, ওখানে যাওয়ার পর তা আর রক্ষা করেন না। ফলে হাজিদের অবর্ণনীয় দুর্দশার মধ্যে পড়তে হয়। আবার অনেক সময় দেখা যায়, হজ গমনেচ্ছুদের কাছ থেকে টাকা-পয়সা নিয়ে একটি অসাধু চক্র সটকে পড়ে।

সবকিছু পরিশোধ করেও হজযাত্রীরা যখন তাদের হজযাত্রায় অনিশ্চয়তা দেখেন বাধ্য হয়েই তখন তারা অনশনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। শেষ সময়ে সরকারের হস্তক্ষেপে সেসব হজযাত্রীদের হজে পাঠাতে হয়েছে। এই কার্যক্রম দেশের ভাবমূর্তিকে ক্ষুণ্ণ করে। হাজিদের সঙ্গে এ ধরনের প্রতারণা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

হজের জন্য যারা মক্কা-মদিনায় অবস্থান করেন তারা যেন কোনো বিড়ম্বনার শিকার না হন তা নিশ্চিতে রাষ্ট্রপতি হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাবের প্রতি আহ্বান জানান। বাংলাদেশ থেকে এ বছর প্রায় ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ পালনে সৌদি আরব যাবেন।

হজযাত্রীদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে আপনারা বাংলাদেশকে তুলে ধরবেন। আপনাদের আচার-আচরণ, কথা-বার্তায় কেউ যাতে কষ্ট না পায়, আমাদের সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণার সৃষ্টি না হয় সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখবেন।

আশকোনা হজ ক্যাম্পে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন, সৌদি দূতাবসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স হারকান হুয়াইদি বিন শুয়াইহ, ধর্ম সচিব আনিছুর রহমান, হজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম। পরে রাষ্ট্রপতি হজযাত্রীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।