১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ১লা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) এর সাথে দেশের দ্রুত বর্ধনশীল মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস প্রতিষ্ঠান উপায়-এর সাথে সম্প্রতি একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

এই চুক্তির ফলে বিজিএমইএ –এসইআইপি প্রকল্পের মাধ্যমে পোশাক খাতের মধ্যম পর্যায়ের কর্মকর্তা ও শ্রমিকদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে পরিচালিত প্রশিক্ষণ কর্মসূচীতে অংশগ্রহণকারীদেরবৃত্তির টাকা বিতরণ হবে উপায়-এর মাধ্যমে।

বিজিএমইএ প্রেসিডেন্ট ফারুক হাসান এবং উপায়-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও রেজাউল হোসেন নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

বাংলাদেশ সরকার এবং এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক যৌথ অর্থায়নে পরিচালিত বিজিএমইএ এসইআইপি প্রজেক্টটি বাস্তবায়ন করছে বিজিএমইএ।

বিজিএমইএ প্রেসিডেন্ট ফারুক হাসান বলেন, “আরএমজি শিল্প পরবর্তীস্তরের প্রবৃদ্ধির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে যেখানে আগামীদিনে শিল্পের প্রয়োজন মেটাতে কর্মীবাহিনীকে দক্ষতা ও জ্ঞান দিয়ে সজ্জিত করার জন্য দক্ষতা উন্নয়ন একটি শীর্ষ অগ্রাধিকার। বিজিএমইএ সকল সদস্য কারখানায় দ্রুত, দক্ষ ও মসৃণ সেবা  নিশ্চিত করতে এর সেবাগুলোকে ডিজিটালাইজ করার জন্য বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে, যেগুলো সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ-এর রূপকল্পের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।”

উপায়-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও রেজাউল হোসেন বলেন, “বিজিএমইএ-এসইআইপি দক্ষতা বৃদ্ধি প্রকল্পের প্রশিক্ষণার্থীদের বৃত্তির টাকা বিতরণে উপায়কে নির্বাচিত করার জন্য আমরা বিজিএমইএকে ধন্যবাদ জানাই। আরএমজি শিল্প কয়েক দশক ধরে আমাদের অর্থনীতির প্রাণশক্তি, দেশের মোট রপ্তানি আয়ের ৮১ শতাংশেরও বেশি আসে এই খাত থেকে। এই প্রকল্পটি প্রশিক্ষণ গ্রহণকারীদের তাদের দক্ষতা বাড়াতে এবং শিল্পে আরও অবদান রাখতে সহায়তা করবে।”

বিজিএমইএ কমপেক্সে অনুষ্ঠিত চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএর সহ-সভাপতি শহীদুল্লাহ আজিম, পরিচালক রাজীব চৌধুরী ও নীলা হোসনা আরা এবং উপায়-এর চিফ সেলস এ্যান্ড সার্ভিস অফিসার ইমন কল্যাণ দত্ত এবং উপদেষ্টা জিষ্ণুরায় চৌধুরী।

২০২১ সালের ১৭ মার্চ আনুষ্ঠানিক যাত্রা  শুরু করেই উনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি‘উপায়’। বর্তমানে উপায় বিস্তৃত পরিসরে এমএফএস সেবা প্রদান করছে ইউএসএসডি এবং মোবাইল অ্যাপ উভয়ের মাধ্যমে। উপায় এর মাধ্যমে গ্রাহকরা সব ধরনের আর্থিক লেনদেন যেমন: ক্যাশ-ইন, ক্যাশ-আউট, ইউটিলিটিবিল পেমেন্ট,

মার্চেন্ট ও ই-কমার্স পেমেন্ট; রেমিট্যান্স, বেতন ও সরকারি ভাতাগ্রহণ এবং মোবাইল রিচার্জ ছাড়াও ট্রাফিক ফাইন পেমেন্ট এবং ভারতীয় ভিসা ফি পেমেন্টের মতো এক্সক্লুসিভ সেবাগ্রহণ করতে পারছেন।