৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ || ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কক্সবাজার শহরে পাহাড় ধসে একই পরিবারের ৪ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। অন্যদিকে রামু উপেজলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের পানেরছড়া গ্রামে পাহাড় ধসে আরো মৃত্যু হয়েছে ১ শিশুর ।

রাতভর ভারি বৃষ্টির পর বুধবার ভোর সাড়ে ৬টায় শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার বাচামিঞার ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো- ওই এলাকার জামাল হোসেনের তিন মেয়ে মর্জিয়া আকতার (১৫), কাইফা আকতার (৯), খাইরুন্নেছা (৭) ও ছেলে আব্দুল খাইর (৬)।

নিহতদের মামা খোরশেদুল আলম জানান, বুধবার ভোরে ওই চার শিশুর মা বাড়ির বাইরে কাজ করছিলেন। হঠাৎ বাড়ির পার্শ্ববর্তী পাহাড় বসতঘরের ওপর ধসে পড়ে। এতে ঘুমন্ত চার শিশু মাটির নিচে চাপা পড়ে যায়। মায়ের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। স্থানীয় মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়েও মানুষ ডাকা হয়।
স্থানীয়রা ওই চার শিশুকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কক্সবাজারের ইনচার্জ শেফায়েত হোসেন  এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে রামু উপেজলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের পানেরছড়া গ্রামে পাহাড়ধসে মোর্শেদ আলম (৬) নামে এক শিশু নিহত হয়েছে। নিহত শিশু একই এলাকার জাকির হোসেনের ছেলে।
ক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরাজুল হক টুটুল  বলেন, পাহাড়ধসে কক্সবাজার ও রামুতে ৫ শিশু নিহত হয়েছে।

এদিকে কয়েকদিনের ভারী বর্ষণের ফলে আবারও পাহাড় ধসের আশঙ্কায় ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা থেকে বাসিন্দাদের নিরাপদে সরে যেতে বলা হয়েছে। কক্সবাজারে পাহাড়ের পাদদেশে এখনো ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে অসংখ্য পরিবার।

কক্সবাজারের সহকারী আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান বলেন,  গত ২৪ ঘণ্টায় শহরে ২২৮ মি.মি বৃষ্টিপাত হয়েছে। এভাবে বৃষ্টিপাত হলে আরো পাহাড়ধসের আশঙ্কা রয়েছে।